ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অস্থিতিশীল করার ’চক্রান্ত’ ঠেকাতে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের আয়োজনে মানববন্ধনে যোগ দিয়েছেন আশপাশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মেয়েরা। তবে পরিচয় গোপন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিসেবে পরিচয় দেয়ার চেষ্টা করে। যদিও পরে ধরা পড়ে তাদের আসল পরিচয়।
বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) রাজু ভাস্কর্যের সামনে ’সাধারণ শিক্ষার্থীদের’ ব্যানারে মানববন্ধন করা হয়। এতে অংশ নেন হোম ইকোনমিকস, ইডেন ও বেগম বদরুন্নেসা সরকারি কলেজের ছাত্রীরাও। এ সময় তাদের সঙ্গে ছাত্রলীগের কিছু কেন্দ্রীয় নেতাদেরও দেখা যায়।
গত ১ জুলাই ও ৩ জুলাই কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারী সংগঠন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতাদের ওপর হামলা হয়। সেই সঙ্গে ফেসবুক লাইভে এসে ’মনে হয় তার বাপের দেশ’ জাতীয় বক্তব্য দেয়ার পর এক নেতা আছেন রিমান্ডে।
পুরো ঘটনা নিয়ে পরিষদের সমর্থক এবং ছাত্রলীগের কর্মীদের মধ্যে চলছে পাল্টাপাল্টি। একদিকে ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে চলছে বিক্ষোভ, সেই সঙ্গে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরাও নানা কর্মসূচিতে সোচ্চার।
’বিশ্ববিদ্যালয় অস্থিতিশীল করার চক্রান্তের’ প্রতিবাদে মানববন্ধনে অংশ নেয়া এক ছাত্রী প্রথমে নিজেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হলের আবাসিক ছাত্রী বলে পরিচয় দেন। কিন্তু হলের কক্ষ নম্বর বলতে পারেননি। পরে স্বীকার করলেন তারা ইডেনে কলেজের ছাত্রী।
বলেন, ’আসলে আমরা ইডেন কলেজের ছাত্রী। আপুরা ডাকছে, তাই আসছি।’ এরপর নাম ও বিভাগ জানতে চাইলে এ ছাত্রীকে কথা বলতে দেননি কয়েকজন মেয়ে।
মানববন্ধনে কেন?- জানতে চাইলে মেয়েরা বলেন, ক্যাম্পাসে অস্থিতিশীলতা তৈরি হয়েছে শুনে বড় আপুরা আমাদের এখানে পাঠিয়েছে। তারাও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে অস্থিতিশীলতা চান না।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, কোটা সংস্কারের নামে কিছু শিক্ষার্থী অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করছে। তাদের আন্দোলনে এখন সাধারণ শিক্ষার্থী নেই। এজন্য তারা নিজেদের মধ্যে মারামারি করছে। তাদের প্রতিরোধ করতে হবে।
এদিকে পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী রাজু ভাস্কর্যে আজ সকাল ১০টায় মানববন্ধন করার কথা ছিল কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারী সংগঠনের শিক্ষার্থীদের। তবে পরে এই কর্মসূচি পালিত হয় অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে।
ঢাকাটাইমস
             

News Page Below Ad