মাদক এবং সন্ত্রাসের ব্যাপারে কারও সঙ্গে কোনো আপস করবেন বলে কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ।
তিনি বলেন, মাদক ও সন্ত্রাস নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে আমরা কারও কাছে মাথা নত করব না। এখানের নাগরিকদের নিরাপত্তা দেয়া আমাদের দায়িত্ব। এজন্য সাংবাদিকদের কাছ থেকে আমরা সহযোগিতা চাই। আপনারা আমাদের তথ্য দেবেন। আমরা চেষ্টা করব সত্যতা যাচাই করে অভিযান চালাতে।
শনিবার নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের হানিফ খান মিলনায়তনে বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটের সহযোগিতায় নারায়ণগঞ্জ জেলা সাংবাদিক ইউনিয়নের (এনইউজে) আয়োজনে তিন দিনব্যাপী সাংবাদিক কর্মশালায় এসব কথা বলেন তিনি।
পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ বলেন, সাংবাদিকরা সমাজের অসঙ্গতি তুলে ধরবেন এটাই আমাদের প্রত্যাশা। পুলিশ সাংবাদিক যদি একসঙ্গে কাজ করে তাহলে শহরে অনেক ভালো কাজ করা সম্ভব। ১৯৭৫ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর প্রতিবাদ করতে কেউ সাহস পায়নি। তখন একমাত্র সাংবাদিকরা বঙ্গবন্ধুর কথা তুলে ধরেছেন। একসময় আমাদের কাছে দেশের সংবাদ জানার একমাত্র মাধ্যম ছিল সংবাদপত্র। এখন অনেক মাধ্যম হয়েছে। পত্রিকা, টেলিভিশন, অনলাইন ও সোশ্যাল মিডিয়া অনেক দূর এগিয়ে গেছে। কিন্তু এসব মাধ্যম যাতে অপব্যবহার না হয় সেজন্য আমাদের দৃষ্টি রাখতে হবে।
পিআইবির মহাপরিচালক কবি ও গবেষক জাফর ওয়াজেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন- পিআইবির পরিচালক (প্রশাসন) জাকির হোসেন, নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি মাহবুবুর রহমান মাসুম, সাবেক সভাপতি রুমন রেজা, সাবেক সাধারণ সম্পাদক শরীফ উদ্দিন সবুজ, সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবদুস সালাম ও সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন পন্টি।
অনুষ্ঠানে পিআইবির মহাপরিচালক জাফর ওয়াজেদ বলেন, আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে এদেশের প্রগতিশীল চিন্তা-চেতনার ধারণায় যারা সাংবাদিকতা করেন তাদেরকে প্রশিক্ষিত করে তুলতে চাই। বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাংবাদিকবান্ধব। তিনি সাংবাদিকদের কল্যাণের জন্য ৪০ কোটি টাকার একটি কল্যাণ তহবিল করে দিয়েছেন। এটিকে ১০০ কোটি টাকার তহবিল করা হবে। সাংবাদিকদের চিকিৎসার পাশাপাশি তাদের সন্তানদের শিক্ষার জন্য কল্যাণ তহবিল থেকে অনুদান দেয়া হবে।


সূত্র: জাগো নিউজ ২৪