নীলফামারী জেলা বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের একটি জেলা। এটি রংপুর বিভাগের আটটি জেলার একটি অন্যতম সীমান্তঘেষা জেলা। এ জেলার সদর বা রাজধানী নামও নীলফামারী। নীলফমরী জেলার
বাণিজ্যিক শহর হিসেবে পরিচিত সৈয়দপুর। এই সৈয়দপুরন শহরের কুন্দল এলাকায় ১৯৮০ সালে অ্যাগ্রো রিসোর্স কম্পানি নামের একটি কারখানা গড়ে ওঠে। শুরুতে এই কারখানাটি জবাইয়ের পর ফেলে দেওয়া গরু-মহিষের শিং ও হাড় ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে সংগ্রহ করে তা থেকে গুঁড়া সার তৈরি করতো। বর্তমানে কারখানায় তৈরী হচ্ছে গরু-মহিষের শিং ও হাড় থেকে উন্নতমানের রকমারি বোতাম।

বাহারি ডিজাইন ও নকশার এই সব বোতাম রপ্তানি হচ্ছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। অ্যাগ্রো রিসোর্স কম্পানি লিমিটেড নামের কারখানায় গরু-মহিষের শিং ও হাড় প্রক্রিয়াজাতের মাধ্যমে তৈরি এসব বোতাম দেখতে আকর্ষণীয় এবং টেকেও অনেক দিন। কিন্তু বাংলাদেশ থেকে গরু-মহিষের শিং ও হাড় অবৈধভাবে পাচার হওয়ার কারণে কারখানাটি কাঁচামাল সংকটের সম্মুখীন হচ্ছে। এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে লিখিত আবেদন করা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বাণিজ্যিক শহর সৈয়দপুরের কুন্দল এলাকায় ১৯৮০ সালে অ্যাগ্রো রিসোর্স কম্পানির কারখানাটি গড়ে তোলা হয়। সে সময় জবাইয়ের পর ফেলে দেওয়া গরু-মহিষের শিং ও হাড় ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে সংগ্রহ করে তা থেকে গুঁড়া সার তৈরি করা হতো। এসব হাড়ের গুঁড়া সার কৃষকরা তাদের আবাদি জমিতে ব্যবহার করত। অবশ্য সে সময় থেকেই কারখানার হাড় ও শিংয়ের গুঁড়া সার বিদেশেও রপ্তানি করে আসছিল প্রতিষ্ঠানটি। পরবর্তী সময়ে অ্যাগ্রো রিসোর্স কম্পানির কারখানাটিতে গরু-মহিষের শিং ও হাড় প্রক্রিয়াকরণের মাধ্যমে বিভিন্ন আকার ও সাইজের উন্নতমানের বোতাম তৈরি শুরু হয়। এসব বোতাম শার্ট, প্যান্ট, কোট, সাফারিসহ বিভিন্ন পোশাকে ব্যবহার করা হয়। দিন দিন প্রতিষ্ঠানটির তৈরি বোতামের চাহিদা বেড়ে যায়। এ অবস্থায় প্রতিষ্ঠানের জন্য সৈয়দপুর শহরের বাইপাস সড়কে ও দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার দেবীগঞ্জ বাজারসংলগ্ন এলাকায় কারখানাটি স্থাপন করা হয়। আর কারখানায় বিদেশ থেকে আমদানি করা বোতাম তৈরির অত্যাধুনিক সব মেশিনপত্র বসানো হয়েছে। কারখাানটিতে এসব মেশিনের সাহায্যে গরু-মহিষের শিং ও হাড় থেকে উন্নতমানের বোতাম তৈরি করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে গরু-মহিষের শিং ও হাড় থেকে তৈরি করা হচ্ছে বাহারি নকশা ও ডিজাইনের চিরুনি ও শোপিস। বর্তমানে কারখানা দুটিতে সহস্রাধিক নারী ও পুরুষ শ্রমিক কাজ করছে। কারখানায় তৈরি মালামাল রপ্তানির জন্য নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের নতুন বাবুপাড়া ছাড়াও ঢাকায় মতিঝিলে প্রতিষ্ঠানের আলাদা আলাদা অফিসও খোলা হয়েছে। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানের কারখানায় তৈরি বিপুল পরিমাণ টাকার বোতাম চীন, অস্ট্রিয়া, হংকং, জার্মানিসহ বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করা হচ্ছে।


প্রতিষ্ঠানটির এমডি নজরুল জানান, আগে গ্রামেগঞ্জে ও শহরে গরু-মহিষ জবাইয়ের পর সেসবের শিং ও হাড় ফেলে দেওয়া হতো। কিন্তু এখন আর সেসব ফেলনা নয়। আর এখন ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে গরু-মহিষের শিং ও হাড় সংগ্রহ করে তা থেকে বোতাম, চিরুনি তৈরি করে রপ্তানি করা হচ্ছে। এতে একদিকে যেমন দেশের রপ্তানি আয় বেড়েছে, তেমনি এলাকার মানুষের কর্মসংস্থানও হয়েছে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী দেশ থেকে অবৈধভাবে উন্নতমানের গরু-মহিষের শিং ও হাড় পাচার করছে। আর পাচার হওয়া শিং ও হাড়ের মূল্য লেনদেন হচ্ছে হুন্ডির মাধ্যমে।

তিনি বলেন, ’কাঁচা চামড়া যেমন রপ্তানি নিষিদ্ধ করে চাপড়াজাত পণ্য রপ্তানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে। ঠিক তেমনিভাবে গরু-মহিষের শিং ও হাড় রপ্তানি নিষিদ্ধ করা হোক। আর এ বিষয়টি আমার প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে লিখিতভাবে অবহিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।’


উল্লেখ্য, অ্যাগ্রো রিসোর্স কম্পানির এমডি মো. নজরুল ইসলাম। এর আগে তিনি দেশের অপ্রচলিত পণ্য রপ্তানি করে ১৯৯০ ও ১৯৯১ সালে পর পর দুইবার রপ্তানি খাতে বাণিজ্যিক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির (সিআইপি) মর্যাদা লাভ করেন।