সারা বিশ্বের বর্তমান সময়ের সব থেকে বড় আতঙ্কের নাম চীনে সৃষ্ট করোনাভাইরাস। আর এই করোনার আতঙ্কের কারনে ভুগছে বিশ্বের অন্যান্য দেশ গুলোও। ইতিমধ্যে চীন থেকে বাংলাদেশি অনেক শিক্ষার্থীকে ফিরিয়ে আনা হয়েছে দেশে। আর এই সকল ফিরিয়ে আনা শিক্ষার্থীদের রাখা হয়েছে নিবিড় পর্যবেক্ষনে। এর মধ্যে গতকাল বুধবার ফিরিয়ে আনা এক শিক্ষার্থীকে করোনা সন্দেহে ভর্তি করা হয়েছে রংপুর মেডিকেল কলেজে।
জ্বর ও কাশি নিয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবার তৌকির ইসলাম।

তৌকির ওই উপজেলার সুজাপুর গ্রামের কাদের মন্ডলের ছেলে।

এ নিয়ে গত এক সপ্তাহে করোনাভাইরাস সন্দেহে ৩ জন শিক্ষার্থী এ হাসপাতালে ভর্তি হলেন। এদের মধ্যে গত শনিবার তাশদীদ হোসেন ও রোববার আলামিন নামে এক শিক্ষার্থী ভর্তি হন।

এদের মধ্যে আলামিনকে সোমবার উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা কুর্মিটোলা হাসপাতাল স্থানান্তর করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তবে গত মঙ্গলবার আইইডিসিআর থেকে প্রেস ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, আলামিন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত না।

এদিকে রমেক হাসপাতালে ভর্তি তাশদীদ হোসেনও শঙ্কামুক্ত বলে জানা গেছে।

রমেক হাসপাতালের পরিচালক ফরিদুল ইসলাম জানান, তৌকির ইসলাম নামে ওই শিক্ষার্থী শরীরে জ্বর ও কাশি নিয়ে হাসপাতালে আসলে হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডের করনা ইউনিটে তাকে ভর্তি করা হয়।

প্রসঙ্গত, এখনো বাংলাদেশের অনেক শিক্ষার্থী আটকে আছে চীনে। তবে সকলকে ফেরত আনতে চাইছে না বাংলাদেশ সরকার। সরকারের পক্ষ থেকে সাফ জানিয়ে দেয়া হয়েছে আর কোন শিক্ষার্থীকে ফেরত আনা হবে সরকারি অর্থায়নে। ফিরতে হলে নিজেদের অর্থায়নে ফিরতে হবে। তবে চীনে থাকা অনেক শিক্ষার্থীরা এখন পার করছে মানবেতর জীবন।