দেশের গুণী নির্মাতা কাজী হায়াতের ঘাড়ের একটি রক্তনালিতে ব্লক ধরা পড়েছে। এ কারণে উন্নত চিকিৎসার জন্য গত ২২ ডিসেম্বর তিনি নিউইয়র্কে গেছেন। বর্তমানে নিউইয়কের্র প্রেসবাইটেরিয়ান হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন কাজী হায়াৎ। সেখানে তার সাথে স্ত্রী ও ছেলে চিত্রনায়ক কাজী মারুফ অবস্থান করছেন।
তবে গতকাল সন্ধ্যায় গুজব ছড়িয়ে পড়ে কাজী হায়াৎ মারা গেছেন। এ খবর শুনে বেশ কষ্ট পান কাজী হায়াৎ ও তার সন্তান মারুফ। পরে মারুফ তার ফেসবুকে লিখেন আমার বাবা ভালো আছেন। দয়া করে কেউ অপপ্রচার চালাবেন না।
এরপর বুধবার বাংলাদেশ সময় রাত ১২টায় ছেলে মারুফের ফেসবুক থেকে লাইভে আসেন কাজী হায়াৎ। তিনি বলেন, আমি হাসপাতালে আছি, অসুস্থ তবে বেঁচে আছি। যারা মিথ্যা কথাটা ছড়িয়েছেন তাদেরকে আমি নিন্দা করি। আমি অনেক কষ্ট পেয়েছি। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন যেন সুস্থ হই।



গত বছরের মার্চে নিউইর্য়কের মাউন্ট সিনাই হাসপাতালে চিকিৎসা নেন কাজী হায়াৎ। সম্প্রতি আবারও চিকিৎসার জন্য একই হাসপাতালে ভর্তি আছেন তিনি। ২০০৪ সালে কাজী হায়াতের হৃৎপিণ্ডে দুটি রিং বসানো হয়েছিল। ২০০৫ সালে ওপেন হার্ট সার্জারি করা হয় তাঁর। এরপর আবারও সমস্যা দেখা দিলে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন করে তিনি। সেসময় প্রধানমন্ত্রী তার চিকিৎসার জন্য থেকে ১০ লাখ টাকা অনুদান দেন। বর্তমানে তার শারীরিক অবস্থা খারাপ হওয়ায় আবারও নিউ ইয়র্কে রওনা করেন তিনি। হৃদরোগ ও ডায়াবেটিসে আক্রান্ত কাজী হায়াতের ঘাড়ের একটি রক্তনালিতে ব্লক ধরা পড়েছে।amadershomoy