বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সেতু ও সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাতক্ষীরায় আসছেন। তাই চলছে তোড়জোড়। সড়কে জমে থাকা পানি সেচ দিচ্ছেন সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্মচারীরা। কোথাও কোথাও চলছে জোড়াতালি। লোকে দেখে হাসছেন আর বলছেন, এতদিন পর সড়ক ও জনপথ বিভাগের ঘুম তাহলে ভাঙলো। ঠিক এমন পরিস্থিতি এখন সাতক্ষীরা জেলাজুড়ে। তার সফরকে কেন্দ্র করে এই দৃশ্যের অবতারণা হয়েছে সাতক্ষীরায়।
প্রসঙ্গত,সাতক্ষীরা-যশোর,সাতক্ষীরা-খুলনা,সাতক্ষীরা-কালীগঞ্জ-শ্যামনগর-মুন্সীগঞ্জ, সাতক্ষীরা-আশাশুনিসহ সাতক্ষীরা পৌরসভার সব ক’টি সড়ক দীর্ঘদিন ধরে সংস্কারের অভাবে চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এতে গত তিন বছর ধরে মানুষ অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।
সাতক্ষীরা-আশাশুনি সড়কের সাতক্ষীরা পৌরদীঘির পাড়ে সোমবার বিকেলে সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্মচারীরা পৌরসভার একটি ট্রাক ব্যবহার করে সড়ক মেরামতে ব্যন্ত ছিলেন। তাদেরই একজন বললেন, ভাই ফাটাকেস্টো আসছেন। এখন কথা বলার সময় নেই। একটু পরেই সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসবে। এখনো অনেক কাজ। ঠিক একইভাবে সাতক্ষীরা-যশোর সড়কের কোথাও কোথাও জোড়াতালি আর কোথাও কোথাও পানি সেচ দিয়ে শুকাতে ব্যস্ত সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্মচারীরা। এ নিয়ে ফেসবুকও সরগরম। প্রতিটি মানুষ রান্তা দিয়ে চলছেন, তোড়জোড় দেখছেন আর ছবি তুলে স্ট্যাটাস দিচ্ছেন।
ফেসবুকে সাংবাদিক ইয়ারব হোসেনের লিখেছেন, বাড়ি পড়লে বিড়ালও গাছে ওঠে। তাই তো আজ সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্মচারীরা রাস্তার পানি সেচে পরিষ্কার করছেন। পথচারী আবু জাফর বলেন, সবসময় শুনি বরাদ্দ নেই। এখন হঠাৎ এতো বরাদ্দ কোথা থেকে এলো। এ টাকা দিয়ে আগেই কাজ করলে তো মানুষ একটু দুর্ভোগ থেকে বাঁচতো।
এদিকে,সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক হারুন-উর-রশীদ জানান,বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সেতু ও সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের মঙ্গলবার সকালের ফ্লাইটে দলীয় সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম উদ্বোধন করতে সাতক্ষীরায় আসছেন। বেলা ১১টায় তিনি শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্কের জনসভায় বক্তব্য রাখবেন। দুপুর আড়াইটায় দুপুরের খাবার শেষে তিনি সার্কিট হাউজে দলীয় নেতাদের সাথে মতবিনিময়ে অংশ নেবেন। বিকেলে ঢাকার উদ্দেশ্যে সাতক্ষীরা ত্যাগ করবেন।
তথ্যসূত্র: গো নিউজ২৪

News Page Below Ad