ফতুল্লার লালপুরে আলোচিত ব্রাজিল বাড়ির মালিক জয়নাল আবেদীন টুটুল। এবারের ফুটবল বিশ্বাকাপ খেলার উন্মাদনায় এ বাড়িটি ছিলো সর্মথকদের মূল আকর্ষন। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে শুরু করে বিদেশ থেকেও ভক্তদের আগমন ঘটেছে এ বাড়িটিতে। যে বাড়ির মালিকের এতো আলোচনার পর এবার বের হলো আসল থলের বিড়াল।
ব্রাজিল বাড়ির মালিক সেই টুটুল একসময় ছিলেন ফতুল্লায় যুমনা তেল ডিপোর কেন্টিন বয়। নো ওয়ার্ক নো পে (কাজ করলে টাকা না করলে নাই) ভিত্তিতে দৈনিক ৫০ থেকে ৫৫ টাকায় প্লেট ধোয়ার কাজ করতেন। সেই টুটুল এখন কোটিপতি। অথচ তার বাবা মো রফিক ছিলেন যুমনা তেল ডিপোরই একজন সিকিউরিটি গার্ড। তার মৃত্যুর পর টুটুল ওই চাকুরী পায়।
২৭ ই জুলাই বৃহস্পতিবার প্রচারিত একটি বেসরকারী টেলিভিশনের অনুসন্ধানের বের হয়ে আসে আরো অজানা অনেক তথ্য। জানা গেছে, ২০০৫ সালে গ্রেজার (তেল মাপার কাজ) হিসেবে চাকরীটি তার স্থায়ী হয়। এরপর থেকে তাকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। রাতারাতি বনে যায় কোটিপতি। লেখাপড়ায় তেমন পারদর্শী না হলেও। ইয়রেজী বলার অভিনয়ে সে ছিলো অভিনেতা। তবে তারপরেও লোভ আর ভুল তার পিছু ছাড়েনি। চলাফেরাও ছিলো খুব স্মার্ট।
এ অনুসন্ধানে এক প্রশ্নের জবাবে, সেই টুটুল কোম্পানির নামটি উচ্চারণ করে বিবিসি বলে। যার মানে বুঝায় ব্রিটিশ ব্রডকাস্টিং করপোরেশন। এটি বিশ্ব বিখ্যাত একটি সংবাদ মাধ্যমের নাম। আসলে নামটি হবে বিপিসি যার র্অথ বাংলাদেশ পেট্রেলিয়াম করপোরেশন। এতো বছরের কর্মরত জীবনে এ ভুল আসলেই বেমানান। স্বাভাবিকভাবে এটি কেউ মেনে নিবে না।
বেসরকারী টেলিভিশনের অনুসন্ধানীমূলক সেই অনুষ্ঠানে আরো বলা হয়, মূলত তেল চুরির টাকা দিয়ে ফতুল্লার লালপুরে ব্রাজিল বাড়ির মত বিলাসবহুল বাড়িটি গড়ে তুলেন সেই টুটুল। যার সিড়ি থেকে শুরু করে দরজা, খাওয়ার প্লেট, সবকিছুতেই আলিশান ও ব্রাজিলের রংয়ে রাঙ্গানো, মূল্যবান তৈজসপত্র।
জানা গেছে, ফতুল্লার লালপুরে ব্রাজিল বাড়ির পাশাপাশি রয়েছে আরো একটি জমি। এছাড়াও নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে রয়েছে ১৫ শতাংশ জমি। তবে তার দাবি বোনদের সহযোগীতা ও বাবার গ্রামের বাড়ি জমি বিক্রয় করে নাকি গড়ে তুলেছে এ ব্রাজিল বাড়িটি। তাছাড়াও নারায়ণগঞ্জের ইউসিবি ব্যাংক থেকে ১০ বছর মেয়াদে ২০ লাখ টাকা লোন নিলেও মাত্র দেড় বছরের ব্যবধানে পরিশোধ করা হয় টাকা। টুটুলের এসব কাহিনী ব্রাজিল বাড়ির বদৌলতে সকলে পজেটিভ বিষয় জানলেও বিপরীতে অনেক তথ্যই ছিলো অজানা। ইতিমধ্যে দুর্নীতির অভিযোগে তাকে একবার বদলিও করা হয়। দুদকে জমা পড়েছে দুর্নীতির অভিযোগ।
এ বাড়িতে ছুটে আসেন ব্রাজিলের রাষ্ট্রদূতসহ ব্রাজিলের তিন সাংবাদিক। অথচ বাংলাদেশ থেকে ১৬ হাজার মাইল দূরে ব্রাজিলের মত দরিদ্র দেশকে নিয়ে এমন মাতামাতিই তার কাল হয়। বিশ্বকাপের খেলা দেখতে গিয়ে এসেছেন রাশিয়াতেও। এছাড়াও কিছুদিন আগে কার্নিবালে যোগ দিতে ব্রাজিলের রাষ্ট্রদূত থেকে নিমন্ত্রন পেয়েছেন সেই টুটুল।somoyerkonthosor