পাবনা-৪ আসনের মনোনয়ন বঞ্চিত সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পাঞ্জাব বিশ্বাস আওয়ামী লীগ সভাপতি জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবর খোলা চিঠি দিয়েছেন ।
মঙ্গলবার সকালে নিজ ফেসবুক ওয়ালে এই চিঠি পোস্ট করেন তিনি। চিঠি প্রসঙ্গে সাবেক এমপি পাঞ্জাব বিশ্বাসের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি এর সত্যতা রিশ্চিত করেছেন।
পাঠকদের জন্য চিঠিটি হুবহু তুলে ধরা হলো।
বরাবর,
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী

সভাপতি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ,
বিষয়: পাবনা ৪ এর জনগণ এবং নেতাকর্মীর উপর চলমান নির্যাতনের বিপরীতে সুবিচার প্রার্থনা।
প্রিয় নেত্রী,
আন্তরিক শ্রদ্ধাসহ গভীর দুঃখের সাথে আপনাকে জানাচ্ছি, আপনার মনোনীত প্রার্থী শামসুর রহমান শরীফ দ্বারা জীবনের সতেরোটি বছর বহুমুখী নির্যাতনের স্বীকার হয়েও আপনার আলোকিত নেতৃত্বে প্রিয় মাতৃভূমির আকাশচুম্বী উন্নয়নের পক্ষের একজন কর্মী হিসেবে জনগনকে সাথে নিয়ে মাঠে ছিলাম।
উক্ত প্রোগ্রামগুলোতে হাজার হাজার মোটরসাইকেল, গাড়ি ইত্যাদি পরিবহন থাকলেও কেউ একটি টাকা আমার কাছে নেয়নি, পাবনা জেলার সর্ববৃহৎ প্রোগ্রামগুলো আমার নেতৃত্বে সংগঠিত হয়েছে যা সর্বজনীনভাবে স্বীকৃত। আমি কৃতজ্ঞ, পাবনা জেলার প্রশাসনিক ভূমিকা এইসব প্রোগ্রামে ইতিবাচক ছিলো।
আমার ক্ষুদ্র একটা শিল্পপ্রতিষ্ঠান ছিলো শিল্প ব্যাংকের আর্থিক সহযোগিতায়। বিএনপি আমলে দেশের উত্তরাঞ্চলীয় এই পাদুকা তৈরির কারখানায় আর্থিক অবরোধ করে ধংস করা হয়।
সামান্য চলতি মূলধন ঋনের বিপরীতে মীরপুরের বাউনিয়া মৌজায় বর্তমান ডিওএইচএস সংলগ্ন বিশাল মূল্যবান সম্পত্তি ব্যাংকে দ্বায়বদ্ধ থাকার পরেও আমার বিরুদ্ধে দেউলিয়া মামলা করা হয়েছিল। আমার রিভালবার সরকারের জিম্মায় নিয়ে পাঁচ বছর আমাকে নিরস্ত্র করে রাখা হয়।
বর্তমান জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আমার উক্ত ঋনের এক কোটি ঊনষাট লক্ষ টাকা এলাকার জনগণ ব্যাংকে গিয়ে পরিশোধ করেছেন যখন আমি ঢাকায় অবস্থান করি।
নিঃসন্দেহে ঘটনাটি অনুধাবন করার দাবি রাখে। আমার সমসাময়িক বহুজন আজ ব্যাংকের মালিক হয়েছেন। আমি নিজের সততা এবং দেশপ্রেমের অনুভব নিয়ে প্রতিকূল পরিবেশের সাথে লড়াই করে টিকে আছি।
আপনার ঘোষিত মনোনয়ন নিয়ে আমার কোনো প্রশ্ন নেই কারণ রাজনীতি করি জনগণের জন্য, নিজের কাজের সুযোগ থাকলে সেটার সুফল দেশ পাবে, আমি ব্যক্তিগতভাবে নয়। কষ্ট লাখো মানুষের সোনালি স্বপ্নভঙ্গের। এলাকায় শোকের মাতম চলছে এখনো তাদের সামনে যাওয়ার সাহস পাচ্ছি না।
এদিকে আপনার ঘোষিত প্রার্থী জনাব শামসুর রহমান শরীফের ক্ষয়মূখী সন্ত্রাসী কর্মী বাহিনীর অবশিষ্টাংশ ইতিমধ্যেই আমার লোকজনের উপর, এলাকার দলীয় নেতাকর্মীর উপর বেধড়ক অত্যাচার শুরু করেছে। বাড়িঘরে আঘাত, গুলি, রাস্তায় ধরে বেধড়ক মার, ইতিমধ্যেই দু’একজন হাসপাতালের বিছানায় শুয়েছেন।
তাদের আচরণে মনে হচ্ছে দল দেশ এবং দেশের কল্যাণ তারাই ইজারা নিয়েছে।
এতো কর্মীর রক্ত, জীবন এবং প্রকাশ্যে সবরকম দুর্নীতির পরও যখন তার বিপরীতে পুরস্কার আসছে তখন পাবনা ৪ এর জনগণ এবং নেতাকর্মীকে আশ্রয় দিবে কে?
উল্লেখ্য যে মাত্র কদিন আগে তার ঔরসজাত কণ্যা পিয়া তার নিজের এবং স্বামীর নিরাপত্তার সংকট জানিয়ে তার ফেসবুকে স্টেটাস দিয়েছে যা সবাই দেখেছেন। নিজের মেয়ে জামাই যার হাতে নিরাপদ নয় সেখানে জনগণ এবং দলীয় নেতা কর্মীদের নিরাপত্তা কোথায়?
আপনার মতো বিশ্ববরেণ্য নেত্রীর কাছে সুবিচার প্রত্যাশা করা অমূলক নয়।
বিনীত, পাঞ্জাব বিশ্বাস, সাবেক এমপি পাবনা-৪।