বিএনপি’র সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খানের মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করে রায় দিয়েছে নির্বাচন কমিশন আপিল বিভাগ। অন্যদিকে, সাবেক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী মীর নাসির এর ছেলে মীর হেলালুদ্দিনের প্রার্থীতা বাতিল করেছে নির্বাচন কমিশন।
শনিবার (৮ ডিসেম্বর) সকাল ১০টায় রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে আপিল শুনানি শুরু হয়েছে। সেখানেই এসব রায় দেওয়া হচ্ছে।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল শুনানির তৃতীয় দিনে শনিবার সারাদিনে ২৩৩ জন প্রার্থীর আপিল নিষ্পত্তি হবে।
শনিবার বেলা ১১টা পর্যন্ত মনোনয়নের বৈধতা নিয়ে যাদের রায় দিয়েছে নির্বাচন কমিশন:
শনিবার আপিলে বৈধ যারা
জামালপুর ৩- নঈম জাহাঙ্গীর, নেত্রকোনা ১- আব্দুল কাঈয়ুম খান, ময়মনসিংহ ১- এ কে এম লুৎফর রহমান, ময়মনসিংহ ৬- চৌধুরী মুহাম্মদ ইসহাক
আপিলে অবৈধ যারা
এছাড়া, নেত্রকোনা এক মো এরশাদুর রহমান বাতিল, ময়মনসিংহ চার কামরুল ইসলাম মো ওয়ালিদ বাতিল, ময়মনসিংহ নয় আলমগীর কবির বাতিল, ময়মনসিংহ সাত এম এ রাজ্জাক খান বাতিল, নেত্রকোণা পাঁচ মো জাকির হোসেন বাতিল, ময়মনসিংহ তিন নাজনীন আলম অনুপস্থিত।
এর আগে, গত বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার এই দুইদিনে ৩১০ জন প্রার্থীর আপিল নিষ্পত্তি করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রথমদিনে ১৬০ জনের আবেদনের শুনানী শেষে ৮১ জন তাদের প্রার্থীতা ফিরে পেয়েছেন, ৭৭ জনের আবেদন নামঞ্জুর করা হয়েছে এবং দুই জনের আবেদন স্থগিত রাখা হয়। দ্বিতীয় দিন ১৫০ জনের আপিল শুনানি শেষে ৮৪ জন বৈধ, ৫৯ জনের প্রার্থীতা বাতিল হয়েছে এবং ৭ জনের স্থগিত রাখা হয়েছে। আজ শনিবার ৩২২ জনের আপিল শুনানি হবে।
গত ৮ নভেম্বর তফসিল ঘোষণা করে ইসি, পরে ১২ নভেম্বর পুনঃতফসিল ঘোষণা করা হয়। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী গত ২৮ নভেম্বর ছিল মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন। গত ২ ডিসেম্বর ছিল মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাইয়ের শেষ দিন। এদিন সারা দেশে দাখিল করা ৩ হাজার ৬৫টি মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের পর ২ হাজার ২৭৯টি মনোনয়ন পত্র বৈধ এবং ৭৮৬টি মনোনয়ন পত্র বাতিল ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা। বাতিল হওয়া প্রার্থীরা তাদের প্রার্থিতা ফিরে পেতে ৩ ডিসেম্বর থেকে ৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৫৪৩ জন আপিল করেন। ৬ ডিসেম্বর শুরু হয়ে ৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রার্থীদের আপিল গ্রহণের ওপর শুনানি চলবে। পরদিন ৯ ডিসেম্বর মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন এবং ১০ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে। আগামী ৩০ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণ।latestbdnews.