মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার মনোরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সাঈদ এনামের চিঠির জবাব দিলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন।
নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের আল নুর মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার পর প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্নের ভূমিকা, পদক্ষেপ এবং তার কিছু বক্তব্যের প্রতি সমর্থন জানিয়ে ২৩ মার্চ একটি চিঠি ই-মেইল করেন চিকিৎসক সাঈদ এনাম।
ই-মেইল পাঠানোর পাঁচদিন পর চিঠির জবাব দিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন। প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্নের পক্ষে তার কার্যালয়ের একান্ত সচিব ডায়না অকেবা এ চিঠির জবাব দিয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সাঈদ এনাম। একই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্নের পক্ষ থেকে পাঠানো ই-মেইলের ডকুমেন্ট দিয়েছেন চিকিৎসক সাঈদ এনাম।
চিকিৎসক সাঈদ এনামের চিঠির জবাবে প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন যে চিঠি দিয়েছেন তা পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো-
\’ডা. সাঈদ এনাম, আমাকে ই-মেইল পাঠানোর জন্য তোমাকে ধন্যবাদ। ঠিক এই সময়টাতে হাজারো মানুষের সমর্থন, সাহস এবং তোমাদের পাশে পেয়ে আমি অনুপ্রাণিত। এখন আমার সব ধ্যান তাদের ঘিরে, যারা এই ঘটনায় অবর্ণনীয় দুঃখ-কষ্টের মধ্যে রয়েছেন। সমগ্র নিউজিল্যান্ডবাসীর মতো আমিও আমার হৃদয়ের সব ভালোবাসা দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত মুসলমানদের পাশে রয়েছি। এমনকি পরিষ্কারভাবে বলছি, আমি মুসলমানদের পাশে আছি এবং থাকব। আমার সব চিন্তা, ভালোবাসা তাদের ঘিরে যারা এ ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তাদের প্রতি আমার এ ভালোবাসা, সহযোগিতা ও সহমর্মিতা থাকবে আজীবন।\’
প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন চিঠিতে আরও লিখেছেন, \’নিউজিল্যান্ডের জন্য এটি বিষাদময় সময়। এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি আমরা কখনো হইনি। কিন্তু ঠিক এই মুহূর্তে দেশ ও দেশের বাইরে থেকে সবার সহযোগিতা, সহমর্মিতা ও ভালোবাসা পেয়ে আমার মনে হচ্ছে আমরা সবাই এক, তবে একা নয়। সবার শক্তি নিয়ে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। আপনাকে আবারও ধন্যবাদ পাশে থাকার জন্য।\’
এ বিষয়ে ডা. সাঈদ এনাম বলেন, নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের আল নুর মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার পর প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্নের ভূমিকা, পদক্ষেপ এবং তার কিছু বক্তব্যের প্রতি সমর্থন জানিয়ে আধাপৃষ্ঠার একটা চিঠি মেইল করেছিলাম। চিঠির মূল বিষয় ছিল, জাসিন্ডার কাজগুলোকে সমর্থন, আর সত্য প্রকাশে সাহসী ভূমিকা এবং হামলার বিষয়ে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার প্রশংসা।
সাঈদ এনাম বলেন, কাউকে মেইল করলে বা হ্যালো বললে ন্যূনতম ভদ্রতা হলো ধন্যবাদ বলে উত্তর দেয়া, সে যেই হোন। এই সৌজন্যবোধ খুব কম মানুষের মধ্যে দেখা যায়। ক্রাইস্টচার্চের আল নুর মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্নের ভূমিকা ও পদক্ষেপের বিষয়ে সন্তুষ্ট হয়ে আমি মেইলটি করেছিলাম। কিন্তু এতো তাড়াতাড়ি মেইলের জবাব আসবে তা ভাবিনি। সত্যিকার অর্থে জাসিন্ডা আরডার্ন সব ধর্ম-গোত্রের ঊর্ধ্বে। বিশাল মনের মানুষ তিনি। বিশ্বে মহানুভবতার এক বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন তিনি।
গত ১৫ মার্চ নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে গুলি চালান ব্রেন্টন ট্যারেন্ট নামে এক অস্ট্রেলীয়। এতে প্রাণ হারিয়েছেন ৪৯ জন। আহত হন ৪৮ জন। ক্রাইস্টচার্চের আল নুর মসজিদে মুসল্লিদের ওপর রাইফেল নিয়ে হামলা চালান ব্রেনটন। অল্পের জন্য ওই হামলা থেকে বেঁচে যান বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সদস্যরা।
নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের আল নুর মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার পর ঘটনাস্থলে গিয়ে সেখানকার মুসলমানদের সান্ত্বনা দেন প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন। একই সঙ্গে এ ঘটনার পর কার্যকরী পদক্ষেপ ও বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করে বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হন জাসিন্ডা আরডার্ন।

সূত্র;জাগো নিউজ ২৪