১২ অক্টোবর শুক্রবার জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলের সদস্যপদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। জেনেভা ভিত্তিক এই সংস্থার এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চল থেকে সদস্য হওয়ার জন্য নির্বাচন করছে বাংলাদেশ, বাহরাইন, ফিজি, ভারত ও ফিলিপাইন।
এদিকে মঙ্গলবার ইউএন ওয়াচ, হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশন ও র‌্যাওয়েল ওয়ালেনবার্গ সেন্টার ফর হিউম্যান রাইটসের প্রকাশিত যৌথ প্রতিবেদনে সদস্যপ্রার্থী দেশগুলোর অভ্যন্তরীণ মানবাধিকার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে বাংলাদেশ, বাহরাইন, ফিলিপাইন, ক্যামেরুন, ইরিত্রিয়া ও সোমালিয়াকে ’অযোগ্য’ বলে মন্তব্য করা হয়।
তাদের প্রতিবেদনে বলা হয়, জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৬০/২৫১নং রেজ্যুলেশন অনুযায়ী সদস্য দেশগুলোর মানবাধিকারের সুরক্ষা ও গুণগত মান বজায় রাখা প্রয়োজন। এই প্রতিবেদনে ভারত, টোগো, ফিজি ও বুরকিনা ফাসোর মানবাধিকার পরিস্থিতিকে ’সমস্যাগ্রস্ত’ বলে উল্লেখ করে এটি নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়। শুধুমাত্র ৮টি দেশ ’আর্জেন্টিনা, অস্ট্রিয়া, বাহামা, বুলগেরিয়া, চেক রিপাবলিক, ডেনমার্ক, ইতালি ও উরুগুয়েকে মানবাধিকার কাউন্সিলের সদস্যপ্রার্থীতার যোগ্য বলে উল্লেখ করা হয়।
১২ অক্টোবরের সদস্যপ্রার্থীতায় এশিয়ান গ্রুপে কাজাকস্তান, মঙ্গোলিয়া, ফিলিপাইন, দক্ষিণ কোরিয়া ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের স্থানে লড়বে বাহরাইন, বাংলাদেশ, ফিজি, ভারত ও ফিলিপাইন। এর মধ্যে যৌথ সংস্থার প্রতিবেদন বাহরাইন, বাংলাদেশ ও ফিলিপাইনকে ইউএনএইচআরসি এর সদস্যপদের অযোগ্য বলে মন্তব্য করা হয় ও ফিজি ও ভারতের সদস্যপদ নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়।
প্রসঙ্গত, ইউএনএইচআরসি এর ২০১৯-২১ সালের মেয়াদের জন্য নির্বাচিত হতে জাতিসংঘের সদস্যভূক্ত ১৯৩টি দেশের মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশের সমর্থন প্রয়োজন হবে বাংলাদেশের। এর আগে বাংলাদেশ ২০০৭-০৯, ২০১০-১২ এবং ২০১৫-১৭ মেয়াদে নির্বাচিত হয়েছিল।
আমাদের সময়