বাংলাদেশের নাগরিকদের জন্য অন-অ্যারাইভাল ভিসা (বিমানবন্দরে নামার পর দেয়া ভিসা) সুবিধা দেয়ার বিষয়ে নোট ভার্বাল পাঠিয়েছে চীন। গত ৩০ নভেম্বর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এ নোট পাঠায় ঢাকায় অবস্থিত চীনা দূতাবাস। মঙ্গলবার সরকারি তথ্য বিবরণীতে এ কথা জানানো হয়েছে।
বাংলাদেশিদের জন্য শর্ত সাপেক্ষে চীনের ’অন-অ্যারাইভাল’ ভিসা দেয়ার কথা গত ২২ নভেম্বর এক বিবৃতিতে জানায় দেশটি। এর আগে গত ২৬ অক্টোবর চীনের জননিরাপত্তাবিষয়ক মন্ত্রী ঝাও কেঝি বাংলাদেশ সফরকালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে বৈঠকে অন-অ্যারাইভাল ভিসা দেয়ার আশ্বাস দেন।
নোট ভার্বালে জানানো হয়েছে, বাংলাদেশের নাগরিকরা চীনে পোর্ট ভিসা/ভিসা অন-অ্যারাইভাল সুবিধা পাবে। জরুরি মানবিক প্রয়োজনে কারও চীনে গমনের প্রয়োজন হলে, জরুরি কাজে বা ব্যবসার প্রয়োজনে চীনে যাওয়ার জন্য কারও আমন্ত্রণপত্র থাকলে, মেরামত কাজের জন্য বা অন্যান্য জরুরি প্রয়োজনে, চাইনিজ ট্রাভেল এজেন্সির মাধ্যমে ট্যুরিস্ট হিসেবে চীনে গমন করলে সংশ্লিষ্ট বিমানবন্দরে পোর্ট ভিসার জন্য আবেদন করে ভিসা পাওয়া যাবে।
চীনে প্রতিবার ভ্রমণে ৩০ দিন মেয়াদে অন-অ্যারাইভাল ভিসা দেয়া হয়।
তথ্য বিবরণীতে বলা হয়েছে, বর্তমানে সব প্রকারের পাসপোর্টধারীদের জন্য মালদ্বীপের সঙ্গে বাংলাদেশের ভিসা অব্যাহতি চুক্তি কার্যকর রয়েছে। এ ছাড়া অফিসিয়াল ও ডিপ্লোম্যাটিক পাসপোর্টধারীদের জন্য সিঙ্গাপুর, ভিয়েতনাম, কোরিয়া, মিয়ানমার, চিলি, লাওস, বেলারুশ, কম্বোডিয়া, ফিলিপাইন, মালয়েশিয়া, কুয়েত, রাশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, শ্রীলঙ্কা, তুরস্ক, ভারত ও চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের ভিসা অব্যাহতি চুক্তি কার্যকর আছে।
শুধু ডিপ্লোম্যাটিক পাসপোর্টধারীদের জন্য জাপান, থাইল্যান্ডের সঙ্গে বাংলাদেশের ভিসা অব্যাহতি চুক্তি রয়েছে। একই সঙ্গে বাংলাদেশি নাগরিকদের ভিসা ছাড়া স্বল্প মেয়াদে ভ্রমণের সুবিধা দিয়ে থাকে ইন্দোনেশিয়া।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগ থেকে অন-অ্যারাইভাল ভিসার বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে বলে তথ্য বিবরণীতে জানানো হয়েছে।jagonews24