সারা বিশ্বে চলছে করোনার তান্ডব। আর এই করোনার তান্ডব শুরু হয়েছে পার্শ্ববর্তি দেশ ভারতেও। দেশটিতে এখন প্রতিনিয়তই বাড়ছে করোনা রোগীদের সংখ্যা। আর সেই সাথে দেখা দিয়েছে করোনা চিকিৎসকদের জন্য নেয়া প্রস্তুতির অনেক ঘাটতি। আর তারই ধারাবাহিকতায় মাস্ক ও পারসোনান প্রোটেকশন ইকুপমেন্ট (পিপিই) সংকটের অভিযোগ তোলায় ভারতীয় এক চিকিৎসককে জোর করে মানসিক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অভিযোগকারী ওই চিকিৎসকের নাম ডা. সুধাকর রাও। খবর বিবিসি।
সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে যাওয়া একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, ভারতের বিশাখাপত্তমের একটি রাস্তায় নিজের গাড়িতে খালি গায়ে বসে আছেন সুধাকর। আরেকটি ভিডিওতে দেখা যায়, তিনি খা’/লি গা’/য়ে রাস্তায় শুয়ে পড়েছেন। হাতবাঁধা। লাঠি দিয়ে আ’/ঘা’/ ত করছেন এক কনস্টেবল।

ঘটনারা সময় স্থানীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন সুধাকর। তিনি জানান, পুলিশ সদস্যরা তার গাড়ি জোর করে থামায় এবং তাকে বের করে নেয়।

বিশাখাপত্তম পুলিশ কমিশনার আরকে মিনা বলেছেন, এক লোক ম’/দ খেয়ে রাস্তায় মা’/ত’/লা’/মি করছেন এমন অভিযোগ পেয়ে পুলিশ সেখানে যায়। ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর আগে পর্যন্ত পুলিশ কর্মকর্তারা জানতেন না ওই ব্যক্তি ডা. সুধাকর রাও।


পুলিশের অভিযোগ, রাস্তায় দেয়া একটি ব্যারিকেড সরিয়ে ফেলার চেষ্টা করছিলেন সুধাকর এবং রাস্তার ওপর ম’/দে’/ র বো’/ত’/ল ফেলে রেখেছিলেন।

দৃশ্যত তাকে মনে হয়েছে মানসিক সমস্যায় ভুগছেন। তাই তাকে প্রথমে একটি পুলিশ স্টেশনে নেয়া হয়। পরে একটি হাসপাতালে প্রাথমিক পরীক্ষা করানো হয়। সেখানকার চিকিৎসকরা তাকে মা’/ন’/সি’/ ক কোনো হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেন।

এ দিকে ভারতে করোনা দিন দিন ছড়াচ্ছে লাগামহীন ভাবে। দেশটিতে এখন করোনা রোগীর সংখ্যা দাড়িয়েছে ১ লাখ ১৪ হাজার। আর সেই সাথে বাড়ছে করোনায় প্রাণহানীর সংখ্যাও। লকডাউন চলা সত্ত্বেও ঠেকানো যায়নি ভারতে করোনার সংক্রমণ। তবে করোনার বিস্তার রোধ করতে এখনো বেশ আশাবাদি ভারতের সরকার।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display