তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন বলেছেন, আওয়ামী লীগের উচিত ছিল সবাইকে ডেকে সমঝোতার মাধ্যমে নির্বাচন করার চিন্তা করা। অথচ তারা এমনভাব করে যেন রাষ্ট্রটা তাদের জমিদারি।
সম্প্রতি চ্যানেল আই-এ এর ’তৃতীয় মাত্রা’য় তিনি এসব কথা বলেন।
নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের ভয় কিসে এমন প্রশ্ন রেখে মঈনুল হোসেন বলেন, বিএনপি যদি ক্ষমতায় না থেকে নির্বাচন করতে পারে তাহলে আওয়ামী লীগ এত জনপ্রিয় দল দাবি করে তারা ক্ষমতায় না থেকে কেন নির্বাচন করতে পারবে না। এখানে জনগণের সাথে সম্পর্ক ও জনগণের ভোট দেয়ার প্রশ্ন। আপনি ক্ষমতায় থেকে সংসদ রেখে ভোট করতে চাইবেন। এরকম দৃষ্টান্ত পৃথিবীর কোথাও নাই। এমন দৃষ্টান্ত দেখাতে পারলে আমি এখনি টকশো থেকে চলে যাব।
নির্বাচন নিয়ে অনিশ্চয়তা রয়েছে জানিয়ে দেশের অন্যতম প্রবীন আইনজীবী ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন বলেন, নির্বাচন হবে কিনা এ বিষয়ে এখন অনিশ্চয়তা আছে। আওয়ামী লীগ নিজেও এসম্পর্কে সম্পূর্ণ নিশ্চিত না। শাসনতন্ত্র এমনভাবে পরিবর্তন করা হয়েছে এজন্য পার্লামেন্টে যেতে হবে এটাকে পাস করাতে হবে। ওদিকে আবার হাইকোর্টে অবজারভেশন দেয়া আছে। এরফলে এমন একটা সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে যে, অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদদের অভাবে এটা হয়েছে। এটা যারা করেছে তারা আওয়ামী লীগকে স্বৈরশাসকের নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছে। যা আওয়ামী লীগের অস্তিত্বের বিরুদ্ধে। এই শাসনতন্ত্র রেখে আপনি ইচ্ছা করলেও অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দিতে পারবেন না।
তিনি বলেন, এখন নির্বাচন চাওয়া মানে আওয়ামী লীগের উৎখাত চাওয়া নয়। আওয়ামী লীগ এতো উন্নয়নের কথা বলে, কথায় কথায় বঙ্গবন্ধুর কথা বলে। নির্বাচনে তো জনগণ ভোট দিবে। সেই দল কেন সংসদীয় ব্যবস্থার মধ্যে নির্বাচন করতে ভয় পাবে?amadershomoy