মেজর মো. আখতারুজ্জামান (অব.) : সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রী বাহাদুরগণ অচিরেই নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করতে যাচ্ছে বলে খোলা মাঠে বক্তৃতা বিবৃতি দিয়ে বেড়াচ্ছেন। কিন্তু সংবিধানের কোথাও নির্বাচনকালীন সরকার বা তার কার্যক্ষমতা বা গঠন প্রক্রিয়া ও আকার সম্বন্ধে একটি শব্দও নেই। আবার অনেকে সংবিধানের ৫৭(৩) ধারাকে  বিকৃতভাবে উপস্থাপন করায় বিষয়টি নিয়ে অযথা ধূম্রজাল সৃষ্টি হচ্ছে বলে অনেকে মনে করছেন। এখানে বলে রাখা ভালো যে, সরকার সরকারই। সরকার একমাত্র সংবিধান অনুযায়ীই গঠিত হয় এবং ক্ষমতা প্রয়োগ ও দায়িত্ব পালন করে। সরকার গঠনে কারও ব্যক্তিগত ইচ্ছা বা অনিচ্ছার বহিঃপ্রকাশের কোনো সুযোগ সংবিধান রাখেনি বা কাউকে দেয়ওনি। সংবিধান সরকার গঠনে এবং কার্যকাল নির্ণয়ে সুস্পষ্ট বিধানাবলি রেখে দিয়েছে। সরকার তথা মন্ত্রিসভা কীভাবে গঠিত তা সংবিধানের ৫৫ এ পরিষ্কারভাবে উল্লে­খ করা আছে যা এখানে হুবহু দেওয়া হলো :
"৫৫। (১) প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশের একটি মন্ত্রিসভা থাকিবে এবং প্রধানমন্ত্রী ও সময়ে সময়ে তিনি যেরূপ স্থির করিবেন, সেইরূপ অন্যান্য মন্ত্রী লইয়া এই মন্ত্রিসভা গঠিত হইবে।
(২) প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক বা তাঁহার কর্তৃত্বে এই সংবিধান-অনুযায়ী প্রজাতন্ত্রের নির্বাহী ক্ষমতা প্রযুক্ত হইবে।
 (৩) মন্ত্রিসভা যৌথভাবে সংসদের নিকট দায়ী থাকিবেন।
 (৪) সরকারের সকল নির্বাহী ব্যবস্থা রাষ্ট্রপতির নামে গৃহীত হইয়াছে বলিয়া প্রকাশ করা হইবে।
 (৫) রাষ্ট্রপতির নামে প্রণীত আদেশসমূহে ও অন্যান্য চুক্তিপত্র কিরূপে সত্যায়িত বা প্রমাণীকৃত হইবে, রাষ্ট্রপতি তাহা বিধিসমূহে-দ্বারা নির্ধারণ করিবেন এবং অনুরূপভাবে সত্যায়িত বা প্রমাণীকৃত কোন আদেশ বা চুক্তিপত্র যথাযথভাবে প্রণীত বা সম্পাদিত হয় নাই বলিয়া তাহার বৈধতা সম্পর্কে কোন আদালতে প্রশ্ন উত্থাপন করা যাইবে না।
(৬) রাষ্ট্রপতি সরকারি কার্যাবলি বণ্টন ও পরিচালনার জন্য বিধিসমূহে প্রণয়ন করিবেন।"। সংবিধান মন্ত্রিসভা গঠনে কোন শূন্যতা রাখে নাই বা শূন্যতার কোন সুযোগও সৃষ্টি করে নাই। কাজেই রাষ্ট্র কখনই মন্ত্রিসভাবিহীন হতে পারবে না বা হওয়ার সুযোগ নাই। যতদিন সংবিধান বহাল থাকবে ততদিন সরকার বা মন্ত্রিসভা সংবিধানের ৫৫ ধারা মেনেই গঠিত হতে হবে যার কোন ব্যত্যয়ের সুযোগ সংবিধানে নাই।
সংবিধান তার ৫৬ অনুচ্ছেদে মন্ত্রিসভার সদস্য তথা প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রীগণ মনোনীত হবে তাও সুস্পষ্ট করে বলে দিয়েছে। সংবিধানের ৫৬ ধারাটি এখানে হুবহু উল্লে­খ্য করা হলো- "৫৬। (১) একজন প্রধানমন্ত্রী থাকিবেন এবং প্রধানমন্ত্রী যেরূপ নির্ধারণ করিবেন, সেইরূপ অন্যান্য মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপ-মন্ত্রী থাকিবেন।
(২) প্রধানমন্ত্রী ও অন্যান্য মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপ-মন্ত্রীদিগকে রাষ্ট্রপতি নিয়োগ দান করিবেন :
তবে শর্ত থাকে যে, তাঁহাদের সংখ্যার অন্যূন নয়-দশমাংশ সংসদ-সদস্যগণের মধ্য হইতে নিযুক্ত হইবেন এবং অনধিক এক-দশমাংশ সংসদ-সদস্য নির্বাচিত হইবার যোগ্য ব্যক্তিগণের মধ্য হইতে মনোনীত হইতে পারিবেন।
(৩) যে সংসদ-সদস্য সংসদের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের আস্থাভাজন বলিয়া রাষ্ট্রপতির নিকট প্রতীয়মাণ হইবেন, রাষ্ট্রপতি তাঁহাকে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ করিবেন।
 (৪) সংসদ ভাঙিয়া যাওয়া এবং সংসদ-সদস্যদের অব্যবহিত পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের মধ্যবর্তীকালে এই অনুচ্ছেদের (২) বা (৩) দফার অধীন নিয়োগ দানের প্রয়োজন দেখা দিলে সংসদ ভাঙিয়া যাইবার অব্যবহিত পূর্বে যাঁহারা সংসদ-সদস্য ছিলেন, এই দফার উদ্দেশ্য সাধনকল্পে তাঁহারা সদস্যরূপে বহাল রহিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবেন।"। সংবিধান এখানে প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের নিয়োগ ও কার্যকাল সম্বন্ধেও পরিষ্কার বিধানাবলি করে দিয়েছে। এমনকি সংসদ না থাকিলে কারা সরকার বা মন্ত্রিসভার সদস্য হতে পারবেন তাও সংবিধানের ৫৬(৪) ধারায় অতি সুস্পষ্টভাবে বলে দেওয়া হয়েছে যা নিয়ে কারও মনে কোনো দ্বিধা নাই।
সংবিধানের ৫৭ ধারায় প্রধানমন্ত্রীর পদ কীভাবে শূন্য হবে তা সংবিধানের ৫৭ ধারায় উল্লে­খ্য যা নি¤েœ দেওয়া হলো-"৫৭। (১) প্রধানমন্ত্রীর পদ শূন্য হইবে, যদি-
 (ক) তিনি কোন সময়ে রাষ্ট্রপতির নিকট পদত্যাগপত্র প্রদান করেন; অথবা
 (খ) তিনি সংসদ-সদস্য না থাকেন।
(২) সংসদের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের সমর্থন হারাইলে প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগ করিবেন কিংবা সংসদ ভাঙিয়া দিবার জন্য লিখিতভাবে রাষ্ট্রপতিকে পরামর্শদান করিবেন এবং তিনি অনুরূপ পরামর্শদান করিলে রাষ্ট্রপতি, অন্য কোন সংসদ-সদস্য সংসদের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের আস্থাভাজন নহেন এই মর্মে সন্তুষ্ট হইলে, সংসদ ভাঙিয়া দিবেন।
 (৩) প্রধানমন্ত্রীর উত্তরাধিকারী কার্যভার গ্রহণ না করা পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীকে স্বীয় পদে বহাল থাকিতে এই অনুচ্ছেদের কোন কিছুই অযোগ্য করিবে না।"। সংবিধানের এই ধারায় ৩টি সুস্পষ্ট কারণ উল্লে­খ্য করা হয়েছে যা ঘটলেই শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রীর পদ শূন্য হবে। প্রথমটি হলো যদি তিনি কোনো সময়ে রাষ্ট্রপতির নিকট পদত্যাগ প্রদান করেন। দ্বিতীয়টি হলো তিনি সংসদ সদস্য না থাকেন এবং তৃতীয়টি হলো সংসদের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের সমর্থন হারান। কাজেই এই সুস্পষ্ট ঘটনা ঘটার পরেই শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রীর পদ শূন্য হবে এবং পদ শূন্য হলেই প্রধানমন্ত্রী তার দায়িত্ব ছেড়ে বাড়ি চলে না গিয়ে আরেকজন নতুন প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব না নেওয়া পর্যন্ত তিনি সংবিধানের ৫৭(৩) ধারা অনুযায়ী বৈধভাবে দায়িত্ব পালন করে যাবেন। সংবিধানের এই ধারায় অত্যন্ত পরিষ্কারভাবে উল্লে­খ করা হয়েছে যে, "প্রধানমন্ত্রীর উত্তরাধিকার কার্যভার গ্রহণ না করা পর্যন্ত" স্বীয় পদে বহাল থাকিতে পারিবেন। নিজে নিজের উত্তরাধিকার হওয়া যায় না- এই শাশ্বত সত্য কথাটি মনে রাখলে বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর যে উনার উত্তরাধিকার হওয়ার কোনো সুযোগ নাই তা কিন্তু ধ্রুব সত্য।
সংবিধানের ৫৮ ধারাটিও নিন্মে হুবহু উল্লেখ করা হলো :
"৫৮। (১) প্রধানমন্ত্রী ব্যতীত অন্য কোনো মন্ত্রীর পদ শূন্য হইবে, যদি-
(ক) তিনি রাষ্ট্রপতির নিকট পেশ করিবার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নিকট পদত্যাগপত্র প্রদান করেন;
 (খ) তিনি সংসদ সদস্য না থাকেন, তবে ৫৬ অনুচ্ছেদের (২) দফার শর্তাংশের অধীনে মনোনীত মন্ত্রীর ক্ষেত্রে ইহা প্রযোজ্য হইবে না;
(গ) এই অনুচ্ছেদের (২) দফা অনুসারে রাষ্ট্রপতি অনুরূপ নির্দেশ দান করেন; অথবা
(ঘ) এই অনুচ্ছেদের (৪) দফায় যেরূপ বিধান করা হইয়াছে তাহা কার্যকর হয়।
(২) প্রধানমন্ত্রী যে কোনো সময়ে কোনো মন্ত্রীকে পদত্যাগ করিতে অনুরোধ করিতে পারিবেন এবং উক্ত মন্ত্রী অনুরূপ অনুরোধ পালনে অসমর্থ হইলে তিনি রাষ্ট্রপতিকে উক্ত মন্ত্রীর নিয়োগের অবসান ঘটাইবার পরামর্শ দান করিতে পারিবেন।
(৩) সংসদ ভাঙিয়া যাওয়া অবস্থায় যে কোনো সময়ে কোনো মন্ত্রীকে স্বীয় পদে বহাল থাকিতে এই অনুচ্ছেদের (১) দফার (ক), (খ) ও (ঘ) উপ-দফার কোনো কিছুই অযোগ্য করিবে না।
(৪) প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগ করিলে বা স্বীয় পদে বহাল না থাকিলে মন্ত্রীদের প্রত্যেকে পদত্যাগ করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে; তবে এই পরিচ্ছেদের বিধানাবলি-সাপেক্ষে তাঁহাদের উত্তরাধিকারীগণ কার্যভার গ্রহণ না করা পর্যন্ত তাঁহারা স্ব স্ব পদে বহাল থাকিবেন।
(৫) এই অনুচ্ছেদে মন্ত্রী বলিতে প্রতিমন্ত্রী ও উপ-মন্ত্রী অন্তর্ভুক্ত।"।
সংবিধানের ৫৫, ৫৬ ও ৫৮ ধারায় নির্বাচনকালীন আলাদা কোনো ক্ষমতাহীন সরকারের বৈধতা সংবিধানের চতুর্থ ভাগের নির্বাহী বিভাগের কোথাও উল্লে­খ নেই। তাছাড়া এখন পর্যন্ত যে নির্বাচন করানোর হুমকি ধমকি চলছে তাতে সংবিধান ভাঙার কোনো আলামত দেখা যাচ্ছে না। কাজেই এই সংসদ রেখেই যদি করানো হয় তাহলে বর্তমান সরকার বা মন্ত্রিসভার বিলুপ্ত হওয়ার কোনো সুযোগ নেই তবে প্রধানমন্ত্রী উনার রাজনৈতিক সুবিধার জন্য সন্দেহভাজন বা অযোগ্য মন্ত্রীদের সংবিধানের ৫৮(২) ধারায় মন্ত্রিসভা থেকে বের করে দিতেই পারেন। এটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একান্ত ব্যক্তিগত সাংবিধানিক ক্ষমতা যা নিয়ে আপত্তি তোলার কোনো অবকাশ কারও নেই তা সবাই জানে।
নির্বাচনকালে সরকার তথা নির্বাহী কর্তৃপক্ষের কর্তব্য হলো নির্বাচন কমিশনকে দায়িত্ব পালনে সহায়তা করা। যা সংবিধানে ১২৬ ধারায় বলা হয়েছে যে ’নির্বাচন কমিশন দায়িত্ব পালনে সহায়তা করা সকল নির্বাহী কর্তৃপক্ষের কর্তব্য হইবে।’ কিন্তু বাস্তবে দেখা যায়, সহায়তার বদলে প্রভাব সৃষ্টি করা হয়। পুলিশসহ প্রশাসন সম্পূর্ণভাবে ক্ষমতাসীনদের তাবেদারে পরিণত হয় এবং ইচ্ছা বা অনিচ্ছায় সরকার প্রধানের মনোবাঞ্ছা পূরণে সহায়ক ভূমিকা রাখে। যার ফলে নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হওয়ার পথে বাধা সৃষ্টি করে। সেজন্য জনগণ মনে করে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের পূর্ব শর্ত হলো- সরকারের পদত্যাগ এবং সংসদের বিলুপ্তি। কিন্তু আগামী নির্বাচন যদি সংবিধানের ১২৩(৩)(১) ধারার আওতায় হয় তাহলে বর্তমান সরকার বা মন্ত্রিসভা বিলুপ্ত হওয়ার সুযোগ নেই এবং করলেও তা সাংবিধানিকভাবে বৈধ হবে না। কারণ নির্বাচন তখন এই সংসদের মেয়াদ থাকার ৯০ দিনের মধ্যে হতে হবে এবং সরকারও এ সংসদের মেয়াদ পর্যন্ত থেকে যাবে। অথচ এখন বিভিন্ন মহল থেকে নির্বাচনকালীন সরকার গঠিত হতে যাচ্ছে একটি ’খোশগল্প’ বা ’রটনা’ বা ’বাজে গুজব’ বলা যেতে পারে। কারণ সংসদ না ভেঙে বা প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগ না করে অন্য কোনো সরকার গঠন করার সুযোগ রাষ্ট্রপতি বা স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীকেও সংবিধান এখন যে অবস্থায় আছে সেই সংবিধান দেয় না। তাছাড়া সবচেয়ে বড় লক্ষণীয় যে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী আজ অব্দি নির্বাচনকালীন সরকারের ব্যাপারে কোনো কথা প্রকাশ্যে বলেননি। কাজেই ধরে নেওয়া যায় নির্বাচনকালীন সরকার একটি কল্পনা বিলাস যা দিয়ে সরকার হয়তো জনগণের দৃষ্টি ধোঁয়াশা করে দিতে চাচ্ছে এবং এর মাধ্যমে কোনো একটি রাজনৈতিক সুবিধা অর্জন করতে চাচ্ছে। তবে সরকার যাই চাক না কেন মনে হয় বিরোধী রাজনৈতিক মহল সরকারের সেই ধোঁয়াশার মধ্যে যাবে না। কারণ অতি ছলচাতুরী করতে গিয়ে আগামী নির্বাচনকে অংশগ্রহণ করতে অনিশ্চয়তার দিকে ঠেলে দিচ্ছে। সরকার করাতে পারবে তাতে কারও বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই কিন্তু সেই নির্বাচন কোনো গ্রহণযোগ্য হবে না তা সরকারকে জেনে রাখা বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দেবে। সরকারকে তাই অত্যন্ত স্পষ্টভাবে বলতে চাই-জনগণ দেখে ফেলেছে সরকার খালেদা জিয়াকে জেল দিয়ে আটকে রাখতে পারে। কাজেই জনগণের আর জেল-জুলুমের ভয় নেই। চোখ কান বন্ধ করে, পিঠে ছালা বেঁধে, লুকিয়ে-পালিয়ে বা জেল-জুলুম নির্যাতন মেনে নিয়ে কয়টা মাস জনগণ কাটাতে চায়। কারণ বিখ্যাত কথাসাহিত্যিক প্রয়াত হুমায়ূন আহমেদের বিখ্যাত শ্লোক- ’এই দিন দিন না, আরও দিন আছে। এই দিনেরে নিয়ে যাবে সেই দিনেরই কাছে’।