এশিয়ার ৪১৭টি সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকা করেছে লন্ডন-ভিত্তিক সাপ্তাহিক ম্যাগাজিন ’টাইমস হায়ার এডুকেশন’। তালিকায় নাম নেই বাংলাদেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের। ব্যাপারটি নিয়ে মোটেও বিস্মিত নন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল। এজন্য তিনি দলীয় বিবেচনায় শিক্ষক নিয়োগসহ নানা বিষয়কে দায়ী করেছেন।
আজ এক ফেসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে তিনি এসব কথা বলেছেন। দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসের পাঠকদের জন্য স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হল- ’বিস্মিত হন কেন? ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর তালিকায় কেন থাকে না এনিয়ে বিস্মিত হন কেন?

এখানে দলীয় বিবেচনায় শিক্ষকের নিয়োগ, প্রমোশন, স্কলারশীপ হয়, অন্ধ দলবাজদের বড় বড় পদে নিয়োগ করা হয়, ছাত্রদের জোর করে রাত বিরাতে মিছিলে নেয়া হয়, যে কোন নির্মাণ ও মেরামত কাজ এমনকি কিছু নিয়োগে ঘুষ বা বখড়া দিতে হয় ছাত্রনেতাকে।

বেতন কম এ ধরনের কারণ বা অজুহাতে এখানকার মেধাবী শিক্ষকরা সিংহভাগ সময় ব্যয় করে অন্য প্রতিষ্ঠানে, অমেধাবীরা নানারকম ধান্ধায়। এখানে গবেষনায় বরাদ্ধ খুব কম, সে টাকাও মাঝে মাঝে মেরে দেয়া হয়।

পৃথিবীর কোন দেশের বিশ্ববিদ্যলয়ে এসব ঘটে? এমন একটা ঘুনে ধরা প্রতিষ্ঠান কিভাবে সেরা তালিকায় আসবে? সব জেনেশুনে বিষ্মিত বা দু:খিত হন কেন? সব যখন মেনে নিয়েছি আমরা, তালিকার অবনমনও মেনে নিন সুখী চিত্তে।

আর নেপাল বা শ্রীলংকার বিশ্ববিদ্যালয়? এগুলো শুধু না, অচিরে দেখবেন আমাদের পাবলিক বিশ্ববিদ্যলয়গুলো বুরকিনা ফাসোর বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর চেয়েও খারাপ।’

সূত্র:নয়া দিগন্ত