আনিসুল হক বাংলাদেশের রাজনীতিতে একজন জীবন্ত কিংবদন্তী। যার পুরো জীবনটাই ছিল অনুসরণীয়। মানুষের তরে কাজ করে গেছেন মরে যাওয়ার আগ পর্যন্ত।স্বপ্ন কিভাবে দেখতে হয় আর বাস্তব করতে হয় তার জলজ্যান্ত উদাহরণ ছিলেন আনিসুল হক।শুরু থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত পর্যন্ত যার জীবনে ছিল না কোনরকম কলঙ্কের কালিমা। মনের মানুষটির প্রয়াণ দিবসের দ্বিতীয় বছর হলো আজ। আর তারই দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকীতে তাঁকে স্মরণ করো লিখছিলেন তার একজন অত্যন্ত ঘনিষ্ঠজন পীর হাবিবুর রহমান। পাঠকদের উদ্দেশ্যে তা তুলে ধরা হলো:-

এই ঢাকা নগরীতে একজন মেয়র এসেছিলেন ধুমকেতুর মতোন,বদলে দিচ্ছিলেন উত্তর।কি স্বপ্ন,পরিকল্পনা ও তার বাস্তবায়নে দূর্ধর্ষ সাহস দেখিয়েছেন।কেমন করে সততা পরিশ্রম কর্মদক্ষতায় কর্মে অল্প সময়েই জনতার সেবক হয়ে নগরবাসীর হৃদয় জয় করা যায় দেখিয়ে গেছেন।অকালে চলে যাওয়া মেয়র আনিসুল হকে পথটা তবু কেউ চিনতে পারেননি।কর্মই তাকে অমরত্ব দিয়েছে।

আমার ঘনিষ্ট স্বজন আনিসুল হক বহুবার আমার বাসায় আড্ডার আসরে এসেছেন।বহুবার তার বাসায় কতরাত যে আড্ডা দিয়েছি!মনে পড়লে চোখের পাতা ভিজে আসে। আনিসুল হকের আজ মৃত্যুবার্ষিকী।

আমার ৫০জন্মবার্ষিকীতে আসা এই প্রানবন্ত সৃষ্টিশীল নায়কোচিত হাসিমুখ এখনো হৃদয়ে অমলিন।আল্লাহ দয়াময় জান্নাতের দড়োজা খুলে দিন।যেখানেই থাকুন ভালো থাকুন আনিস ভাই।

ঊল্লেখ্য, মেয়র আনিসুল হকের রয়েছে একটি বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন। বিজিএমইএর সাবেক প্রেসিডেন্ট ছিলেন তিনি। ঢাকা শহর অন্যতম বড় একজন মেয়র ছিলেন তিনি। সব সময় স্বপ্ন দেখতেন নতুন ঢাকা গড়ে তোলার। তারি স্বপ্ন পুরোপুরি বাস্তব করে যেতে পারেননি তিনি।তবে তার অপূর্ণ স্বপ্ন পূর্ণ করতে বর্তমানে হাল ধরেছেন তার স্ত্রী রুবানা। মেয়র আনিসুল হকের অনেক অসমাপ্ত স্বপ্ন পূরণ করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।