বাংলাদেশ, নামটির সাথে জড়িয়ে আছে অনেক বলিদান আর আত্মত্যাগ। আর এই বাংলাদেশটিকে বিশ্বের মানচিত্রে তুলে ধরার জন্য যারা নেপথ্যে থেকে অকাতরে জীবন বিলিয়ে দিয়েছেন তাদের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর পরেই যার অবস্থান তিনি হলেন তাজউদ্দিন আহমেদ। যার নাম বাংলাদেশের ইতিহাসে লেখা আছে এবং থাকবে। তবে শুধু তিনিই নন, তার পুরো পরিবারটাই যেন একটি বাংলাদেশ। বাংলাদেশের জন্য তার পরিবারটি দিয়েছে অনেক বিসর্জন। কিন্তু বেশ কিছুদিন ধরেই এই পরিবারটিকেই নিয়ে শুরু হয়েছে টানা হেচড়া আর অস্মান করার হিড়িক। বিশেষ করে তাজউদ্দিন আহমেদের ছেলে সোহেল তাজের একটি লেখা নিয়েই মুলত শুরু হয়েছে এই আলোচনা সমালোচনার। আর এবার এই বিষয়টি নিয়েই বেশ বিস্তারিত একটি লেখা লিখেছেন দেশের জনপ্রিয় লেখক এইচ রহমান মিলু। পাঠকদের উদ্দেশ্যে তার লেখনি তুলে ধরা হলো হুবহু:-

বিএনপি নেতারা প্রায়ই বলতেন আমরাও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চাই, তবে... কিন্তু... ইত্যাদি.... ইত্যাদি ...! গত কয়েকদিন ধরে তাজউদ্দিন আহমেদ নিয়ে আমারই ভাই বোনদের উক্তিটাও আমার কাছে তেমনই লাগছে। আমরাও তাজউদ্দিন আহমেদকে সন্মান করি, বঙ্গবন্ধুর ডান হাত তাজউদ্দিন বঙ্গবন্ধুকে ভালোবেসে জীবন দিয়েছেন, তবে...কিন্তু...ইত্যাদি...ইত্যাদি...! বঙ্গতাজ তাজউদ্দিন আহমেদের জন্মদিবস থেকে শুরু হওয়া তাজউদ্দিন বধ প্রজেক্ট কে বা কারা শুরু করে? তার মেয়ের লেখা বই নিয়ে যদি ব্যাবচ্ছেদ করতে হয় তবে কি বছরের বাকি ১১ মাসে তা করা যায় না? আপনারা কত বড় বিশাল দেশপ্রেমিক আর মুজিব সেনা হয়ে গেছেন যে আপনাদের কাছে তাজউদ্দিনের পরিবারকে প্রমাণ দিতে হবে যে তারা বঙ্গবন্ধুকে কতটুকু মানেন, কত স্কয়ারফুট শ্রদ্ধা করেন?

যে বই নিয়ে তাজউদ্দিনের পরিবারকে হেয় করতে উঠে পড়ে লেগেছেন সেই বই ১৭ কোটি মানুষের দেশে হাজার খানেক বিক্রি হয়েছে কিনা আমার সন্দেহ আছে। আপনাদের লেজে কেরোসিন লাগিয়ে হাতে জ্বলন্ত কাঠি ধরিয়ে দিলো রাজাকারের নাতি আর গণভবনকে হাওয়া ভবন করতে যাওয়া এক ভাই। আপনারা নিজ দায়িত্বে সেই জ্বলন্ত কাঠি দিয়ে নিজের লেজে আগুন ধরিয়ে লংকাকাণ্ড করতে শুরু করলেন। একবারও ভাবলেন না যে পৃথিবীর এমন কোনো ব্যক্তির নজির নেই, যার সন্তানদের এবং গোটা পরিবারকে বেইজ্জতির মাধ্যমে সেই লোকের প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা প্রদর্শন করা সম্ভব।

সোহেল তাজকে আজ ছাগল বলে যে অর্বাচীনটা ফেসবুকে লিখছে, সে কতবড় আওয়ামী লীগ? কোন যোগ্যতায় তারা এসব অপমান করতে সুযোগ ও সাহস পাচ্ছে? সংসদ ভবনে বঙ্গবন্ধু কন্যার পাশে সৎ, বিশ্বস্ত এবং জীবন গেলেও বেঈমানি করবেন না তাজউদ্দিন সন্তানদের মতো এমন সাংসদ জরুরি? নাকি, পরিস্থিতি বেগতিক হলেই এবং নিজের ফায়দা পেলেই নেত্রীর সাথে পল্টি মারা লোক জরুরি? এসব কিন্তু ৭২ থেকে ৭৫ সাল পর্যন্ত কম হয়নি। তাজউদ্দিন বিরোধী নানা ষড়যন্ত্র করে শেষে খন্দকার মোশতাকেরা সফল হয়েছিলো। ফলাফল কি হলো সেদিন? বঙ্গবন্ধুকে চিরতরের জন্য হারালাম, হারালাম তার পুরো পরিবারকে।

খন্দকার মোশতাকের মন্ত্রিসভায় যোগ দিলো আজকের এই কুচক্রি ভাইদের মতো অনেকে। অনেকে মুচলেকা দিয়ে আওয়ামী লীগ থেকে দূরে থাকলো। কিন্তু সেই দিন তাজউদ্দিন আহমেদসহ জাতীয় চার নেতার কেউ বঙ্গবন্ধুর রক্তের সাথে বেঈমানি করেননি। তারা চাইলে মোশতাকের সাথে হাত মিলিয়ে ক্ষমতা এবং জীবন দুটোই সুরক্ষিত করতে পারতেন। খন্দকার মোশতাক এবং জিয়া খুব ভালো করেই জানতেন তাজউদ্দিনের মাথার দাম কত। একবার যদি তাকে ভেড়ানো যেতো তবে আজ আমরা ইতিহাসটা কেমন পেতাম? জীবন দিয়ে বঙ্গবন্ধুর রক্তের ঋণ শোধ করেও কেনো বার বার তাজউদ্দিন আহমেদকে প্রমাণ করতে হবে যে তিনি কতটা যোগ্য এবং যৌক্তিক ছিলেন?

কতবার তার সন্তানেরা প্রমাণ দেবেন যে তারা বেঈমান না, বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের জন্য তারা জীবন দিতে জানেন? আজ যারা তাজউদ্দিনের পরিবার নিয়ে নোংরামিতে মেতেছেন, বঙ্গবন্ধুকে খাটো করে বই লিখেছে বলে অভিযোগ করছেন, তারা কি কেউ বইটার প্রকাশনা বাতিলের মামলা করেছেন? ২০১৪ সালে প্রকাশিত এই সব কটা বই বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যার পড়া, তারা কি কখনও মনে করেছেন যে এখানে বঙ্গবন্ধুকে হেয় করা হয়েছে? তারা মনে করেননি কেন জানেন? কারন তারা বঙ্গবন্ধুর উচ্চতা জানেন, আপনার মতো বায়বীয় আবেগে তারা বঙ্গবন্ধুকে বিচার করেন না। বইয়ের লেখক কে তারা ছোটবেলা থেকেই আদর করেছেন নিজের আপন বোনের মতো করে। এই মেয়ের লেখায় বঙ্গবন্ধু কোথাও ছোট হবেন না তা তারা ভালো করেই জানেন। কারণ বঙ্গবন্ধু এই মেয়েরও আবেগের জায়গা, যার জন্য তার বাবা নিজের জীবন কোরবানি করে দিতে পারে তার প্রতি অভিমান জমতে পারে, অশ্রদ্ধা জমবার কোনো সুযোগ নেই।

আপনাদের অতি ইমোশনে আজ আবারও বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পক্ষে যুদ্ধ করা অনলাইন আ্যক্টভিস্ট দুই ভাগে বিভক্ত। সুযোগে মাথা গলাতে শুরু করেছে প্রথম আলোর মতিউর রহমান ও মিজানুর রহমানেরা। তাদের ভাড়া করা লোকজন দিয়ে সোহেল তাজের পোস্টে কমেন্ট দেওয়াচ্ছে নতুন রাজনৈতিক সংগঠন দাঁড় করাবার। উদ্দেশ্য একটাই, শেখ হাসিনাকে দূর্বল করা, তার পাশ থেকে সৎ ও বিশ্বস্তজনদের সরিয়ে ফেলা। আপনাদের মগজ কম ব্যবহার করে ইমোশনটা ফুল ভলিউমে ব্যবহার করবার কুফল কি এখনও টের পাচ্ছেন না?

বঙ্গবন্ধু কন্যার পাশে একজন সৈয়দ আশরাফের শুন্যতা আমরা যখন হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছি, সেখানে বিকল্প হিসেবে কি সোহেল তাজকে মনে মনে চাইনি? এর বাইরে একটা নাম কি কারো বলতে পারবেন যিনি সৈয়দ আশরাফের মতো বিশ্বস্ততা ও সততা নিয়ে বঙ্গবন্ধু কন্যার পাশে থাকবেন? বিগত ১২ বছর ধরে রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকবার কারণে দল হিসেবে আওয়ামী লীগ আজ ভয়াবহ দুর্বল অবস্থায় আছে তা কি জানেন? আশরাফ সাহেবের বিদায়ের পর আওয়ামী লীগে হাইব্রিড ও কাউয়া শব্দটার সাথে আমরা প্রথম পরিচিত হই, যা এখন আমাদের কাছে দৈনন্দিন জীবন যাপনের একটি অংশ বনে গেছে। এই সর্বনাশের মাত্রাটা আর বাড়াবেন না।

http://www.ppbd.news/assets/gallery/Sumon/Shahnewaz/yyyyyy.jpg

দেশে একদল যেমন ইসলাম রক্ষার দায়িত্ব নিজ হাতে নিয়ে দেশে ইসলামের বারোটা বাজিয়ে দিয়েছে, আনাচে কানাচে জঙ্গি পয়দা করছে, তেমনি শেখ হাসিনার চেয়ে বেশি বঙ্গবন্ধুপ্রেমী হয়ে আরও কিছু অর্বাচীন পয়দা হয়ে দলটাকে খন্ড বিখন্ড করছে বুঝে ও না বুঝে। পরিশেষে সোহেল তাজ ও তাজউদ্দিন সাহেবের কন্যাদের প্রতি আমার অনুরোধ রইলো, আপনারা বঙ্গবন্ধু কন্যার সাথে দেখা করুন। তাজউদ্দিন আহমেদ এবং জোহরা তাজউদ্দিন আজ জীবিত নেই, শেখ হাসিনাই আপনাদের বাবা, মা, বড় বোন সবকিছু। অভিমান করবার যত বড় যৌক্তিক ও অযৌক্তিক কারণ থাকুক না কেন, একটা সত্য তো অস্বীকার করেননি কখনও যে, শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানার মতো আপন আপনাদের এই দুনিয়াতে আর কেউ নেই। অভিমানেরও একটা সীমা থাকে, সমাপ্তি থাকে, মায়ের মতন বড় বোন শেখ হাসিনার কাছে আপনারা ভাই বোন মিলে চলে যান। কিছুক্ষণ আবেগে কাঁদলেও সকলের মন হাল্কা হবে। আড়ালে থেকে কুটচাল চালাবার সুযোগ বন্ধ হয়ে যাবে অনেক রথি মহারথিদের। দেশের জন্য, আওয়ামী লীগের জন্য এই মুহূর্তে এই দৃশ্যটা সবচেয়ে জরুরি।


স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তাজ উদ্দিন আহমেদ। যিনি ছিলেন বাংলাদেশ স্বাধীন করার অন্যতম বড় একজন কারিগর। বাংলাদেশটাই ছিল যার প্রাণ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের একান্তভাজনও ছিলেন তিনি। ইতিহাস তাকে মনে রাখলেও বর্তমান সময়ের কিছু মানুষেরা তার এবং তার পরিবারের নামে ছড়াচ্ছে নানা কটুক্তিমুলক কেচ্ছা। যা সমাজে সৃষ্টি করছে একি বিভ্রান্তির ধারনা। আর বাংলাদেশে বেশ কিছু দিন ধরেই এই আলোচনা সমালোচনা হচ্ছে। তবে এ নিয়ে এখনো তেমন উচ্চ পর্যায়ের কোন মন্তব্য শোনা যায়নি।

আরো পড়ুন

মোয়াজ্জিন ও লা'শ নিয়ে যাওয়া অটোরিকশা চালকের বয়ানে সিনহা কেসের নতুন মোড়(ভিডিওসহ)

08 August, 2020 | Hits:1815

বাংলাদেশে এখন একটাই আলোচিত এবং সমালোচিত বিষয়। পুলিশের কয়েকজন বিপথগামী অফিসার একজন সাবেক আর্মির মেজরকে গু’/লি হ’/ত্যা করে...

মেজর সিনহার স্কুল জীবনের বিতর্কের ভিডিও সাড়া ফেললো অনলাইনে (ভিডিওসহ)

10 August, 2020 | Hits:720

বাংলাদেশে এখনো সব থেকে আলোচিত একটি নাম সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ। যিনি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একজন চৌকশ মেজর ছিলেন। যার সুনাম...

মেজর সিনহাকে ৪ ঘন্টা আটকে রেখেছিলেন ইলিয়াস কোবরা,৯টি এসএমএস পাঠান ওসিকে

10 August, 2020 | Hits:677

বাংলাদেশ আর্মির অন্যতম চৌকস মেজর ছিলেন সিনহা। যিনি দীর্ঘদিন ধরেই বাংলাদেশের সেনাবাহিনীর দায়িত্ব পালন করে গেছেন নিষ্ঠার স...

একটি জিনিসের সাহায্যে ৫ বছর পর দ্বিতীয় চেষ্টায় পালাতে সফল হলো ক'য়েদি আবুবকর

08 August, 2020 | Hits:496

বাংলা ভাষাভাষী মানুষের কাছে ছোট বেলার একটি কবিতা বেশ জনপ্রয়ি। এবং এই কবিতাটি মানুষ তার কর্ম জীবনেও বেশ প্রভাব ফেলে থাকে।...

এবার প্রকাশ্যে ওসিকে মেজার সিনহার ঘটনা সাজানোর পরামর্শ দাতার নাম

08 August, 2020 | Hits:467

একের পর এক জট পাকাচ্ছে মেজর সিনহার কেসটি। শুরু থেকে এখন পর্যন্ত শুধু বেড়ে চলছে নাটকীয়তাই। তবে এ সব নাটকের অনেকটাই এখন পর...

মধ্যে রাতে ঘুম থেকে তুলে ক্র'সফায়ার দেন ওসি প্রদীপ,টাকাও নেন ১৮ লাখ (ভিডিওসহ)

08 August, 2020 | Hits:460

নানাবিধ অপরাধের মুল হর্তা কর্তা হলেন ওসি প্রদীপ। যিনি দীর্ঘ দিন ধরেই দায়িত্বে ছিলেন টেকনাফ থানার। আর এই দায়িত্বে থাকা কা...