আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ১৯ আসনের বেশি পাবে না বলে মন্তব্য করেছেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ সভাপতি কাদের সিদ্দিকী। তিনি বলেন, ’জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপের আগে মনে হয়েছিল আওয়ামী লীগ ২০ সিট পাবে। কিন্তু গত ৪ দিন ধরে আমরা দেখছি, আওয়ামী লীগ আগামী নির্বাচনে ১৯ সিট পাবে। এর বেশি পেলে আমাকে সাজা দিয়েন। এক সিট, দুই সিট এদিক-ওদিক হলে সাজা দিতে পারবেন না। এর বেশি হলে যা সাজা দেবেন, আমি মাথা পেতে নেবো।’ শনিবার ( ৩ নভেম্বর) জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
ড. কামাল হোসেনের উদ্দেশে কাদের সিদ্দিকী বলেন, ’যেদিন প্রধানমন্ত্রী আপনাদের সঙ্গে সংলাপ করেছেন, আপনাদের বিজয় হয়ে গেছে। আমি যেখানেই থাকি না কেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না।’ তিনি আরও বলেন,  ’ড. কামাল হোসেন এতদিন নির্বাচনে যেখানে দাঁড়াতেন, পাস করতে পারতেন না, এখন তিনি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা, সারা দেশের নেতা। যেখানেই দাঁড়াবেন, বিপুল ভোটে জয়লাভ করবেন। চ্যালেঞ্জ দিলাম, টুঙ্গিপাড়া দাঁড়ালেও জয়লাভ করবেন।’
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের প্রসঙ্গে কাদের সিদ্দিকী বলেন, ’ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ৭ তারিখের পর থেকে আর সংলাপ হবে না। আওয়ামী লীগের সেক্রেটারির কোনও মূল্য নেই। তিনি সংলাপের একদিন আগেও বলেছেন, কোনও সংলাপ হবে না। পরদিনই আবার সংলাপের কথা তাকেই বলতে হলো। আমি হলে বলতাম, সংলাপের কথা বলতে পারবো না, প্রয়োজনে পদত্যাগ করবো। বাংলাদেশের ওবায়দুল কাদের নামে যে মন্ত্রী আছেন, তার কোনও দাম নেই। আওয়ামী লীগের নেতা একজনই, তিনি শেখ হাসিনা। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে অনেক নেতা আছেন, কিন্তু সরকারে নেতা নেই।’
সভায় আরও বক্তব্য রাখেন ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা ড. কামাল হোসেন, ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মুনসুর, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু, নাসরিন সিদ্দিকী প্রমুখ।