ডাকসুর সাবেক জিএস বিএনপি নেতা খায়রুল কবির খোকন বলেছেন, ২৮ বছর পর ডাকসু নির্বাচন হচ্ছে কোন অশুভ হস্তক্ষেপে যেন কলুষিত না হয়। ডাকসু নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হোক এটা আমরা কেউ চাই না। আমরা চাই, ডাকসু নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু গ্রহণযোগ্য হোক। ডাকসু আমাদের প্রাণের প্রতিষ্ঠান, অনেক চড়াই উৎরাই অবশেষে ডাকসু নির্বাচন যদি হয়, তা যেনো আমাদের জাতীয় নির্বাচনের মতো আগের রাতে না হয়। তাহলে জাতি হিসেবে আমাদের আর কোন আস্থার জায়গা থাকবে না। এটার নিশ্চয়তা সরকারকেই দিতে হবে। কোন অশুভ হস্তক্ষেপে এই নির্বাচন যেনো কলুষিত না হয়। বুধবার ডিবিসি টেলিভিশনের রাজকাহন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।
তিনি বলেন, আমরা যখন ডাকসু প্রতিনিধি ছিলাম, তখন কতৃপক্ষের নিকট এতো দাবি নিয়ে যাওয়া দরকার লাগেনি, তখন বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ ছিলো ভালো সহাবস্থান ছিলো সকল দলের, কিন্তু আজ পরিস্থিতি ঠিক বিপরীত, একটি ছাত্র সংগঠন ছাড়া আর কারো জোরালো কোন অবস্থান নেই। দীর্ঘ ৭ বছর পর ছাত্রদল ক্যাম্পাসে এসেছে, এখন দেখতে হবে তাদের যে সব দাবি তা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কিভাবে নেয়। অবশ্যই ছাত্রদলের দাবিগুলো কর্তৃপক্ষ আমলে নিবেন সুষ্ঠু নির্বাচনের তাগিদে।
তিনি বলেন, বামমোর্চা তাদের সমাবেশে ডাকসুকে পরিত্যক্ত বলায় আমার হৃদয় রক্তক্ষরণ হয়েছে, কারণ আমরা ডাকসুকে পরিত্যক্ত ভাবতে পারি না। কিছু ছাত্রের হাইকোর্ট রিটের প্রেক্ষিতে এবং অলি উল্লাহ আশরাফ নামে একটি ছেলের অনশনের প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কুম্ভ কর্ণের ঘুম ভাঙে। সেই প্রেক্ষাপটে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ নির্বাচন দিতে বাধ্য হয়েছে। এখন দেখা যাক নির্বাচন শেষ পর্যন্ত কি হয়, যা গ্রহণযোগ্য করার সব দায়িত্ব সরকারের।

সূত্র:আমাদের সময়