আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪-দলীয় জোটের শরিকরা বিরোধী দলে যাবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে। গতকাল ১৪ দলের বৈঠকে জোট শরিক জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলছেন, ১৪-দলীয় জোটে থেকে বিরোধী দলে যাওয়ার প্রশ্নই আসে না। জোটের প্রয়োজনীয়তা এখনো আছে। আমাদের বিরোধী দলে যেতে হলে সেভাবেই যাব। এজন্য প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নেব। অন্যদিকে একাদশ সংসদ নির্বাচন নিয়ে জোটের আরেক শরিক বাংলাদেশের জাসদ সভাপতি শরীফ নূরুল আম্বিয়ার এক বক্তব্য ’৩০ ডিসেম্বর নিয়ন্ত্রিত ভোট’ হয়েছে। জোটের ’নীতিপরিপন্থী’ বলে সতর্ক করে জোটের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেন, জোটে থাকতে হলে মৌলিক নীতি মেনেই থাকতে হবে। নীতিপরিপন্থী কোনো বক্তব্য গণমাধ্যমে দেওয়া ঠিক নয়।
গতকাল দুপুরে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ১৪ দলের বৈঠকে এসব কথা হয়। বৈঠকে শরীফ নূরুল আম্বিয়া উপস্থিত ছিলেন না। তবে তার দলের সাধারণ সম্পাদক বিষয়টি জাতির সামনে খোলাসা করবেন বলে জানিয়েছেন। বৈঠকসূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। ১৪-দলীয় জোটের মুখপাত্র ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে সভায় ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান নজিবুল বশর মাইজভা ারী, বাংলাদেশ জাসদের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান, গণতন্ত্রী পার্টির অধ্যাপক ডা. শহিদুল্লাহ সিকদার, জেপির এজাজ আহমেদ মুক্তা, ন্যাপের সফিকসহ ১৪ দলের অন্যান্য নেতা উপস্থিত ছিলেন। ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, ১৪-দলীয় জোটের প্রয়োজনীয়তা এখনো শেষ হয়ে যায়নি। কাজেই আমাদের সব দিক বিবেচনা রেখেই সামনে অগ্রসর হওয়া দরকার।
খালেদা জিয়া রাজনীতিক নন, দন্ডিত ব্যক্তি : বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সমালোচনা করে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, খালেদা জিয়া এখন আর কোনো রাজনীতিক নন, তিনি এখন দণ্ডিত ব্যক্তি। নাসিম বলেন, বিএনপি-জামায়াত বিষধর সাপের মতো এখন ঘাপটি মেরে আছে। বৈঠক শেষে হাসানুল হক ইনু বলেন, গত ১০ বছরে ১৪ দল ২৩ দফার বেশকিছু দফা বাস্তবায়ন করেছে। রাজাকারমুক্ত বাংলাদেশ গঠনের প্রক্রিয়া প্রায় বাস্তবায়ন হয়েছে। তবে তারা কেউ কেউ এখনো ঘাপটি মেরে আছে। জামায়াত যত দিন নিষিদ্ধ না হবে তত দিন ১৪ দলের আন্দোলন চলবে।
সূত্র:বিডি প্রতিদিন