গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, ধান উৎপাদনের জন্য কৃষককে এ ধরণের শাস্তি ভোগ করতে হবে তা কল্পনাই করা যায় না। এধরণের পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে, কারণ সরকারের কৃষি নীতি নেই। তাছাড়া এ সরকার যা যা করবে বলে ঘোষণা দিয়েছিল তা তারা মানেনি, মানছেও না। তারা ধান উৎপাদনের সময় বড় বড় কথা বলে, কিন্তু উৎপাদনের পরে সরকারের কি করণীয় তা করে না।
বুধবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক জরুরী সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। এসময় ধানের ন্যায্যমূল্যের নিশ্চিতের দাবি জানান ড. কামাল।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা বলেন, সরকারের দায়িত্বহীনতার কারণে ধান নিয়ে সংকট তৈরি হয়েছে। ধানক্ষেতে আগুন দেওয়া, রাজপথে ধান ছিটিয়ে দিয়ে প্রতিবাদের মতো পরিস্থিতি সরকারের সমন্বয়হীনতার কারণেই হয়েছে।

সংকট কাটাতে চার দফা প্রস্তাবনা দেন তিনি। হাটে হাটে ক্রয়কেন্দ্র খুলে কৃষকের কাছ থেকে ধান কেনা, আধুনিক বাজার ব্যবস্থা চালু, শস্যবিমা চালু, বিনা সুদে বা অল্প সুদে আর্থিক সহায়তা দেয়ার কথাও বলেন তিনি।

তিনি বলেন, আমাদের দুর্ভাগ্য এমন সরকারকে ক্ষমতায় দেখতে হচ্ছে, সইতে হচ্ছে। তাই দেশের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে একটা নির্বাচিত সরকার প্রতিষ্ঠা করার মধ্য দিয়ে জাতিকে এগিয়ে নেয়া। দেশের মানুষকে অবশ্যই ঐকবদ্ধ হতে হবে। সরকারে এসব ব্যর্থতাগুলোকে সামনে নিয়ে তারা ঐক্যবদ্ধ হবে। গণতন্ত্রের জন্য তারা শক্তি প্রয়োগ করে সে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনবে। কারণ গণতন্ত্র ও জবাবদিহিতা না থাকায় অসাধারণ মূল্য দিতে হচ্ছে আমাদেরকে। তাই আসুন দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করি। এতে একটা জবাবদিহিতামূলক সরকার হবে। অবাধ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে একটি প্রতিনিধিত্বশীল সরকার প্রতিষ্ঠা করি।


সূত্র:সময়ের কন্ঠস্বর