ডিজাইনার বিদিশাকে চেনেন না দেশে এমন মানুষ খুব কমই রয়েছে। সাবেক প্রেসিডেন্ট এইচ এম এরশাদের সাবেক স্ত্রী বিদিশা বর্তমানে সমাজসেবামূলক কাজে ব্যস্ত। এরশাদের এই সাবেক দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে যতই বিতর্ক থাকুক না কেন ব্যক্তিগতভাবে তিনি খুবই সদালাপী, বন্ধুবৎসল এবং যাপিত জীবনে অনাড়াম্বর। বিদেশে পড়শোনা এবং জীবনের বেশিরভাগ সময় বিদেশে বসবাস করায় তিনি চিন্তা-চেতনায় আধুনিক মননের মানুষ। তার নামের সঙ্গে যেমন জড়িয়ে রয়েছে বিতর্ক; তেমনি পরোপকারী নারী হিসেবে সমাদৃত। এবার সদালাপি এই মানুষটি কথা বললেন নিজের ব্যাক্তিগত জীবন নিয়ে।
রোববার একটি জাতীয় দৈনিককে দেয়া সাক্ষাৎকার পাঠকদের উদ্দেশ্যে হুবহু তুলে ধরা হলো:-

তিনি বলেন, ওনার (এরশাদ) সাথে প্রেম থেকেই শুরু হয়েছে সব কিছু। পজেটিভ দিয়ে শুরু হয়ে আস্তে আস্তে নেগেটিভের দিকে গেছে। আবার নেগেটিভ থেকেও শেষের দিকে পজিটিভ হয়েছে সেটা হয়তোবা জাতি জনগণ জানে না।

বিদিশা বলেন, শুরুটা তো আমি ওনার প্রেমে পড়েছি, আমাকে ওইভাবে কনভেন্স করতে পেরেছিলেন। তার আগে জানেন আমি বিবাহিত ছিলাম। ব্রিটিশ এক ভদ্রলোকের ওয়াইফ ছিলাম। সেখানে আমার দুই সন্তান আছে।

ইংল্যান্ড থেকে দেশে এসে এরশাদের প্রেমে পড়েছিলেন জানিয়ে বিদিশা বলেন, আমি ইংল্যান্ড থেকে তখন এসেছিলাম। প্রেমে পড়লাম তারপর উনি বিয়ে করলেন।

বিয়ের পরে সব কিছু এরিককে ঘিরেই চলতে থাকে মন্তব্য করে বিদিশা বলেন, সবকিছু এরিককে ঘিরে আমাদের। আমাদের পুরো কন্সেন্ট্রেশন ছিলো সন্তানের প্রতি। সন্তানের সামান্য একটা উহ শব্দ আমরা শুনতে পারতাম না।

এরশাদই বিদিশাকে রাজনীতিতে এনেছেন উল্লেখ করে বিদিশা বলেন, আমাকে উনিই এনেছেন। উনি নিজেই আমাকে রংপুরবাসী, উত্তরবঙ্গ, দিনাজপুর, রাজশাহী সব জায়গায় আমাকে ইন্ট্রোডিউস করে দিয়েছেন। তিনি আমাকে বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে গেছেন।


প্রসঙ্গত,দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন এইচএম এরশাদ। বার্ধক্যজনিত রোগসহ নানা রোগে ভুগছিলেন তিনি। অবশেষে পারি জমান পরপারে।এক সময়কার জীবন সঙ্গীকে শেষ দেখা দেখতে ভারত থেকে ছুটে এসেছিলেন বিদিশা। তবে এরশাদের মরদেহ দেখার সুযোগ হয়নি তার। এমনকি ছেলে এরিকের সঙ্গে দেখার সুযোগও হয়নি তার। এ কারণে ক্ষোভ প্রকাশ করে নিজের ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন বিদিশা।