অবশেষ এ দীর্ঘ কারাবন্দী জীবন থেকে মুক্তি পাচ্ছে বেগম খালেদা জিয়া। গতকাল সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয় তাকে মুক্তি দেবার কথা। মানবিক কারনে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিচ্ছে সরকার। এমনটাই জানা গেছে। আর এ সব তথ্য জানা গেছে সরকারে আইন মন্ত্রী আনিসুল হকের বরাত থেকে। গত কাল বিকেল ৩ টার পরে জানানো হয় এই সংবাদ। এ দিকে খালেদা জিয়ার মুক্তি দেয়া হলেও সরকারের পক্ষ থেকে দেয়া হয়েছে দুটি শর্ত।
এ সম্পর্কে সংবাদ সন্মেলনে আইনমন্ত্রী আরো বলেন, বিদেশে গমন না করার শর্তে প্রধানমন্ত্রীর আদেশে খালেদা জিয়ার দণ্ডাদেশ ছয় মাসের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। এ সময় তাকে বাসায় থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে। বেগম খালেদা জিয়ার বয়স বিবেচনায় মানবিক কারণে সরকার সদয় হয়ে দণ্ডাদেশ স্থগিত রাখার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল মঙ্গলবার রাতে গণমাধ্যমকে বলেন, বিএনপির কারাবন্দী চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া মঙ্গলবার রাতে মুক্তি পাচ্ছেন না। তার মুক্তি সংক্রান্ত প্রস্তাবে এখনো স্বাক্ষর করেননি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাত ৯টার দিকে তিনি বলেন, প্রথমত কোনো বন্দীকে রাতের বেলায় মুক্তি দেয়া হয় না।

খালেদা জিয়ার মুক্তির প্রস্তাবে এখনো অনুমোদন করেননি প্রদানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মাত্র তার কাগজপত্র তৈরি হয়েছে। এটা প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হবে তিনি অনুমোদন দেবেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সরকারি আদেশ জারি করবে তারপরই তিনি মুক্তি পাবেন।



প্রসঙ্গত, জিয়া অরফানেজ ট্রাষ্ট দুর্নিতী মামলায় দোষী সাবস্থ্য হয়ে বেগম জিয়াকে ২০১৮ সালে আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী কারাগারে প্রেরন করা হয়। এর পর থেকেই তিনি কারাভোগ করে আসছেন তিনি। তবে তার শারিরীক অবস্থা বেশ খারাপ বলে দলের পক্ষ থেকে জানানো হয়। আর এই কারনে একাধিক বার তার জামিনের শুনানী করা হলেও দেখা মেলেনি তার জামিনের। অবশেষে সরকারের মানবিক দৃষ্টি থেকে বিবেচনার কারনে মুক্তি পেলেন খালেদা জিয়া।

আরো পড়ুন

বিচার না পাওয়ার বর্ষপূর্তি,চামড়া আর বালিশের নীচে রাখা বন্দুকের নাটকে ভুলিয়ে দেয়া হয়েছে:তুহিন মালিক

31 July, 2021 | Hits:237

আজ ১ বছর পূর্ণ হলো বাংলাদেশের গেল বছরের সব থেকে আলোচিত একটি ঘটনা। বলছিলাম মেজর সিনহার ঘটনার কথা।যে ঘটনায় একেবারেই স্থবির...