গেল শুক্রবার থেকে বিশ্বের সব থেকে বড় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক বাংলাদেশে এক প্রকার অচলই হয়ে যায়। সবখানেই ডাউন হয়ে যায় ফেসবুকের সার্ভার। আর এ নিয়ে সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে নানা ধরনের খবর। ’তিন দিন হয়ে গেল ফেসবুক ব্যবহার করতে পারছি না। ইনস্টাগ্রামেও সমস্যা দেখা দিয়েছে। হোমপেজই লোড হচ্ছে না। ম্যাসেঞ্জার ব্যবহার করে কাউকে মেসেজও পাঠাতে পারছি না।’ রবিবার (২৮ মার্চ) বেলা ১২ টার দিকে এই কথাগুলো বলছিলেন, রাজধানীর খিলক্ষেত এলাকার বাসিন্দা আল শাহরিয়ার মাসুম।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display

এদিকে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার গণমাধ্যমকে বলেছেন, ফেসবুক কি বিবৃতি দিলো, এ নিয়ে আমরা কোনো মাথা ঘামাচ্ছি না, তারা আমাদের আদালতের রায়ই মানেনি। আমাদের অভ্যন্তরীণ সিদ্ধান্ত আমাদের দেশের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নিবে।’

বাংলাদেশে কখন থেকে ফেসবুক ব্যবহার স্বাভাবিক হবে, এমন প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী বলেন, ’আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যখন মনে করবে তখনই ফেসবুক খুলে দেওয়া হবে। তারা নিঃসন্দেহে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়েই এটা নিয়ন্ত্রণ করছে।’

গেল শুক্রবার বিকেলের পর থেকে ফেসবুক ব্যবহারের করতে সমস্যায় পরতে হয় ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার ব্যবহারকারীদের। শনিবার দিনভর একই অবস্থা ছিল।

বাংলাদেশে ফেসবুক ও মেসেঞ্জার অ্যাপে সেবা বিপর্যয়ের ঘটনাটি ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম রয়টার্সেও প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ’ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দুই দিনের সফরকে কেন্দ্র করে চলমান বিরোধিতার পরিপ্রেক্ষিতে শুক্রবার থেকে বাংলাদেশে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি ডাউন করে রাখা হয়েছে।’

এ দিকে ফেসবুক আগের মত স্বাভাবিক করে দেবার ব্যাপারে তেমন আশাজনক কিছুই জানাননি মন্ত্রী মহোদয়। কিন্তু তিনি জানিয়েছেন পরিস্থিত স্বাভাবিক হলে আর আইন শৃঙ্খালা বাহিনীর সবুজ সংকেত পেলেই ছেড়ে দেয়া হবে ফেসবুক।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display