সাকিব আল হাসান আঙ্গুলের চিকিৎসা করাতে এখন অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থান করছেন। অস্ট্রেলিয়ার একটি ক্লিনিকে ভর্তি হয়েছেন এই টাইগার অলরাউন্ডার।ক্লিনিকে সাকিব ৭২ ঘন্টা চিকিৎসকদের নিবিড় পর্যবেক্ষণে রয়েছেন।
কয়েকটি সূত্র জানিয়েছে, আপাতত সাকিবের আঙ্গুলে অস্ত্রপাচার করা লাগবে না। পর্যবেক্ষণ শেষেই চিকিৎসক তার সিদ্ধান্ত জানাবেন। তবে একজন চিকিৎসকের উপর নির্ভর করছেন না সাকিব। তিনি সেখানে বেশ কয়েকজন স্পেশালিস্ট বিশেষজ্ঞদের দেখাবেন। এরপরই সিদ্ধান্ত নিবেন।
সাকিবের আঙ্গুলে অস্ত্রপাচারের প্রয়োজন না পড়লে তাকে মাঠের বাইরে থাকতে হবে অন্তত দুই থেকে তিন মাস। এরপরই হাতের কার্যক্রম স্বাভাবিক হবে। অপারেশন ছাড়াও বিকল্প উপায়ে চিকিৎসার চেষ্টা করছেন বাংলাদেশের এই তারকা।
দেশের একটি অনলাইন গণমাধ্যমকে সাকিবের কোচ ও পরামর্শক মোহাম্মদ সালাউদ্দিন বলেন, ’সাকিব সেখানে এক ক্লিনিকে ৭২ ঘণ্টা ডাক্তারের নিবিড় পর্যবেক্ষণে আছেন। সাকিব জানিয়েছে তার ইনফেকশনের অবস্থা ভালোর দিকে। আগামীকাল ৭২ ঘণ্টার পর্যবেক্ষণ শেষে হয়তো জানা যাবে ডাক্তারের সত্যিকারের ভাষ্য। তবে সাকিব আমাকে জানিয়েছে মেলবোর্নের যে বিশেষজ্ঞ তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখেছেন, তিনি বলে দিয়েছেন আপাতত অপারেশন করা লাগবে না। ইনফেকশন ভালো হয়ে গেলেও অন্তত ছয় মাসের আগে সাকিবের বাঁহাতের কনিষ্ঠা আঙ্গুলে অপারেশন করা যাবে না। তবে চিকিৎসক তাকে আশ্বস্ত করে বলেছেন আড়াই থেকে তিন মাস পর সাকিব খেলতে পারবে। যদি এর মধ্যে ব্যথা করে তখন অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা।’