চলমান বিশ্বকাপের নিয়মগুলো সবারই জানা। এই বিশ্বকাপে মোট দশ দল অংশ নেয়। প্রত্যেক দল একে অপরের বিপক্ষে খেলবে। প্রতিটি দল নয়টি করে ম্যাচ খেলবে। শীর্ষ চার দলই যাবে সেমিফাইনাল। তাই প্রত্যেকটি ম্যাচ গুরুত্বপূর্ণ। বাংলাদেশ ইতিমধ্যে তিনটি ম্যাচ খেলেছে যার মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ২১ রানে জয় পেয়েছে। দ্বিতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে লড়াই করে হেরেছে। আর শেষ ম্যাচে ইংল্যান্ডের সঙ্গে ১০৬ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরেছে। তাই আগামী ম্যাচ গুলো অবশ্যই জিততে হবে বাংলাদেশের।
শনিবার কার্ডিফে ইংলিশদের দেয়া ৩৮৭ রানের বড় সংগ্রহ তাড়া করতে নেমে ৪৮.৫ ওভারে ২৮০ রানে গুড়িয়ে গেছে মাশরাফির দল।



ম্যাচ শেষে মাশরাফি বলেন, ’আমার মনে হয় ৩৮৭ ব্যাটসম্যানদের জন্য খুবই কঠিন লক্ষ্য। প্রথম চার বা পাঁচ ওভার আমাদের নিয়ন্ত্রণে ছিল, তবে এরপরই তারা ম্যাচটি কেড়ে নেয়। আমরা জানতাম রয়কে (জেসন) আউট করতে পারলে আমরা ম্যাচে ফিরতে পারতাম।’

সাকিবেরও প্রশংসা করে অধিনায়ক বলেন, ’৩২০-৩৩০ তাড়া করাটা অন্যরকম হতে পারতো। তবে সাকিব প্রথম ম্যাচ থেকেই দারুণ ছন্দে রয়েছে। তিন নম্বরে ব্যাটিং ও বোলিংয়েরও অসাধারণ করছে। আমাদের এখনও ছয়টি ম্যাচ বাকি রয়েছে, আশাকরি অন্যরাও জ্বলে উঠবে। আর আমাদের পরের সবকটি ম্যাচই জিততে হবে।’