সাকিব আল-হাসান বাংলাদেশী ক্রিকেটার। তিনি বামহাতি মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান এবং বামহাতি অর্থোডক্স স্পিনার। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের টেস্ট ও টি২০ আন্তর্জাতিক সংস্করণে অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন। বাংলাদেশের হয়ে খেলা সর্বশ্রেষ্ঠ ক্রিকেটার হিসেবে বিবেচিত সাকিবকে বিশ্বের অন্যতম সেরা অল-রাউন্ডার বলে গণ্য করা হয়। ১০ বছর ধরে শীর্ষ অল-রাউন্ডারের রেকর্ডের অধিকারী সাকিব এখনো একদিনের আন্তর্জাতিক ও টেস্ট ফরম্যাটে সর্বোচ্চ র‍্যাংকিং ধরে রেখেছেন তিনি। আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্ট নিয়ে নিজের ভাবনা সাফ জানিয়ে দিলেন টেস্ট ও টি-টোয়েন্টির অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। অধিনায়কের মূল লক্ষ্য জয়। প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান, ঘরের মাঠ, সঙ্গে নেই নিয়মিত ওপেনার তামিম ইকবাল। তরুণ ক্রিকেটারদের পরীক্ষা নেওয়ার ভালো সুযোগ। কিন্তু আন্তর্জাতিক ক্রিকেট শুধু পরীক্ষা নেওয়ার জন্য নয়। দিন শেষ জয়ের বিকল্প কিছুই নেই। চট্টগ্রামে ৫ সেপ্টেম্বরের টেস্টে জয়ে চোখ রেখেই দল সাজানোর ইঙ্গিত সাকিবের।
রাজধানীর লা মেরিডিয়ান হোটেলে গতকাল সন্ধ্যায় সাকিব বলেছেন, প্রতিটা দল যখন ম্যাচ খেলতে যায়, তখন কিন্তু এটা চিন্তা করে না যে আমরা খেলোয়াড় তৈরি করতে যাচ্ছি কিংবা নতুন খেলোয়াড় দেখার জন্য যাচ্ছি। সবকিছুই দেখবে কিন্তু দিন শেষে লক্ষ্য থাকে ম্যাচ জেতার। আমরাও ওই লক্ষ্যেই খেলব। এ জন্য যদি নতুন খেলোয়াড় নেওয়ার দরকার হয়, নতুন খেলোয়াড় নেব। যদি দেখি অভিজ্ঞদের পারফর্ম করার সম্ভাবনা আছে তাহলে ওরাই খেলবে। আফগানিস্তানকে খাটো করে দেখার সুযোগ নেই, সেই বার্তাও দিয়ে রাখলেন সাকিব। এ জন্য সতীর্থদেরও বার্তা দিয়ে রাখলেন সাকিব, চ্যালেঞ্জ তো থাকে সব সময়ই। আফগানিস্তান যেভাবে উন্নতি করেছে তাদের বিপক্ষে যেকোনো ফরম্যাটে খেলা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জই। তাদের বেশ কিছু মানসম্পন্ন খেলোয়াড় আছে যারা আমাদের জন্য বিপজ্জনক হতে পারে। আমাদের খুব ভালো ক্রিকেট খেলতে হবে। দল হিসেবে ভালো খেলতে হবে। ব্যক্তিগত দুই একটি পারফরম্যান্স দিয়ে জেতার সুযোগ খুব বেশি একটা থাকবে না। দলগতভাবেই ভালো খেলতে হবে। টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশকে বলে কয়ে হারানোর সামর্থ্য রাখে দলটি। ওয়ানডেতেও চোখ রাঙায় মাঝে মধ্যেই। এবার দীর্ঘ ফরম্যাটে পায়ের নিচের মাটি শক্ত করার পথে এগোচ্ছে আফগানরা। উন্নতির গ্রাফটি স্পষ্ট চোখে পড়েছে সাকিবের।