ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা জিয়াউল ফারুখ অপুর্ব। বাংলাদেশের বর্তমান নাট্য জগতের একটি অবিচ্ছেদ্য নাম এটি। নাটকে তার চরিত্র গুলো নিয়ে যেমন আলোচনা হয় তেমনি তার ব্যক্তিগত জীবন নিয়েও বেশ আলোচনা হচ্ছে এখন। সম্প্রতি আবারো বিয়ে করলেন ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব। পাত্রী যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক শাম্মা দেওয়ান। তার জন্ম ও বেড়ে ওঠা আমেরিকাতেই, পৈত্রিক নিবাস ঢাকার লালমাটিয়ায়। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি রেস্তোরাঁয় তাদের বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। যেখানে দুই পরিবারের সদস্যসহ পাত্র-পাত্রীর নিকটজনরা উপস্থিত ছিলেন। বিয়ের পর ভক্ত ও সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন অপূর্ব।
এদিকে, অপূর্বর বিয়ের দিনে গণমাধ্যমে অপূর্বর সাবেক স্ত্রী নাজিয়া হাসান অদিতিও নিজের বিয়ের কথা জানিয়েছেন। তিনি গণমাধ্যমকে জানান, তিনিও বিয়ে করেছেন। তাও আবার ৮ মাস আগে। তাহলে এত আগে বিয়ে করে অপূর্বর বিয়ের খবর প্রকাশের পর সে কথা কেন জানালেন নাজিয়া? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি গণমাধ্যমকে জানান, ’ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপে দেখলাম আমার নামে গুজব ছড়ানো হচ্ছে। আমি নাকি পরকীয়া করে বিয়ে করেছি। তাই অপূর্বর সঙ্গে আমার কবে বিচ্ছেদ হয়েছে, আমরা কবে বিয়ে করেছি, সেটা পরিষ্কার করতেই বিষয়টি এখন গণমাধ্যমে জানালাম।’

অপূর্বর সঙ্গে ডিভোর্স ও দ্বিতীয় বিয়ের তারিখে জানিয়ে নাজিয়া বলেন, ’অপূর্বর সঙ্গে ছয় মাস আলাদা থাকার পর ডিভোর্স পেপারে সই করি। সেটা ২০১৯ সালের আগস্ট মাসে। আমরা ডিভোর্সের খবর প্রকাশ করি ২০২০ সালের মে মাসে। এরপর আমার দ্বিতীয় বিয়ের কাবিন হয় ২০২১ সালের জানুয়ারিতে।’
নাজিয়ার দ্বিতীয় স্বামীর নাম মাহবুব পারভেজ। তিনি করপোরেট অঙ্গনে চাকরি করেন। তার সঙ্গে পরিচয় ও বিয়ের ঘটনা জানিয়ে নাজিয়া বলেন, ’পারভেজের সঙ্গে আমার ও অপূর্বর পরিচয় আমাদের বিচ্ছেদের প্রায় এক বছর পর। আমার তখন কারও সঙ্গে সম্পর্কে জড়ানোর মানসিক অবস্থা ছিল না। আমি পারভেজকে জানাই পারিবারিকভাবে প্রস্তাব দিতে। প্রস্তাব দেওয়ার পর পারভেজকে আমার মা-বাবা পছন্দ করেন এবং খুবই ছোট পরিসরে আমাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়।’

অদিতিকে জড়িয়ে পরকীয়ার বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলেছেন অপূর্ব নিজেও। তিনি তার সাবেক স্ত্রীকে কোনো অপবাদ না দিয়ে ফেসবুকে লিখেছেন, অদিতি পরকীয়ায় যুক্ত ছিলেন না। আয়াশের মায়ের নতুন জীবনের সংবাদ প্রকাশের পর অনেকেই তাঁকে অপবাদ দিয়েছেন এই বলে যে, তিনি নাকি পরকীয়া করে বিয়ে করেছেন। আমি এটি নিশ্চিত করে বলতে চাই যে এ ধরনের তথ্য একেবারেই মিথ্যা। আমাদের সবাইকে আপনারা আপনাদের প্রার্থনা ও শুভ কামনায় রাখবেন। ভালোবাসা রইল।

প্রসঙ্গত, অদিতি-অপুর্বর ঘরে রয়েছে একটি ছেলে সন্তান। দীর্ঘদিন তারা এক সাথে থাকলেও শেষ পর্যন্ত টেকেনি তাদের সংসার। প্রায় বছর খানিক আগেই বিয়ে বিচ্ছেদ করেন তারা। আর এরপরে দুজনেই বিয়ে করেছেন।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display