বাংলাদেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব ডা. জাফরুল্লাহ।দীর্ঘদিন ধরেই তিনি বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতে কাজ করে আসছেন সফলতার সাথে। এ ছাড়াও দেশের সমসাময়িক সব বিষয় নিয়ে তিনি সব সময়ই কথা বলে থাকেন। সম্প্রতি গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, একজন মানুষ খু’ন’ করলে তার ফাঁ’সি’ হয়, যাবজ্জীবন হয়। কেউ গণতন্ত্র হ’ত্যা’ করলে, গণতন্ত্রকে ক’ব’র’স্থ’ করলে তার কী শাস্তি হওয়া উচিত? সেই ব্যক্তি বিচারপতি খায়রুল হক। প্রকাশ্যে তার বিচার হওয়া উচিত। সে জাতিকে ধ্বংস করে দিয়েছে। তাকে আজীবন জেলখানায় দেখতে চাই। এখান থেকে দেশকে ফিরিয়ে আনতে হবে।
শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে ’রাজনৈতিক সংকট উত্তরণে পেশাজীবিদের ভূমিকা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

পেশাজীবীদের উদ্দেশে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, পেশাজীবীদের আওয়াজ উঠাতে হবে। এই অ’না’চা’র’-অ’ত্যা’চা’র’ আমরা আর সহ্য করব না। জীবনের শেষ ক্ষণে থাকলেও আমরা ভীত নই। আমরা আপনাদের সঙ্গে আছি।

গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা বলেন, দুইদিন আগে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়কের জেনারেল ওসমানীর জন্মবার্ষিকী ছিল। আমরা এতটা নিমকহারাম যে একটা বড় দলও তার জন্মবার্ষিকী পালন করেনি। এমন কি মুক্তিযোদ্ধারও। এখনো কয়েকশো সিনিয়র মুক্তিযোদ্ধারা বেঁচে আছেন তারাও করেন নাই। এতে প্রমাণ করে আমাদের অনেক দূর এগিয়ে যেতে হবে। আরেকজন সিনিয়র মুক্তিযোদ্ধা তোফায়েল আহমেদ অসুস্থ হয়েছেন। আপনারা তার জন্য দোয়া করবেন। উনি যেন সুস্থ হয়ে ফিরে আসেন।

তিনি বলেন, মোদিবিরোধী আন্দোলনে গ্রেপ্তারকৃত ছাত্র অধিকার পরিষদের ৫৪ জন ছাত্রের জামিনের ব্যাপারে প্রধান বিচারপতি সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছিলাম। তিনি বলে পাঠালেন ’বিচারের ক্ষেত্রে হস্তক্ষেপ করতে পারি না।’ পরীমনির ব্যাপারে কী হলো? তার বিচার দ্রুত করতে বলা হলো। এখন পর্যন্ত ছাত্রদের জামিন দেয় নাই। এই ধরনের বিচারপতিরা জঘন্য ব্যক্তি। প্রত্যেকটা বিচারপতির সম্পদের হিসাব চাই আমরা। আমাদের পরিবর্তন দরকার। বিচার বিভাগ ঠিক না হলে সুশাসন আসবে না।

এ ছাড়াও এ দিন তিনি দুই জন বিচারপতিকে ধন্যবাদও জানান। বিশেষ করে বাংলায় লেখার জন্য তিনি দুই বিচারপতিকে তার তরফ থেকে বিশেষ ধন্যবাদ জানান।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display